WB Primary Teachers – রাজ্যের 1 লক্ষ 86 হাজার প্রাথমিক শিক্ষকদের নয়া নির্দেশ, না মানলে বার্ষিক ইক্রিমেন্ট নিয়ে সমস্যা হবে, Breaking News.

তাহলে কি বন্ধ হতে পারে WB Primary Teachers দের ইনক্রিমেন্ট? এই সব প্রশ্নের মুখে শিক্ষকেরা।

পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত প্রাথমিক শিক্ষকদের (WB Primary Teachers) জন্য গুরুত্বপূর্ন বিজ্ঞপ্তি। জরুরী ভিত্তিতে আবার ডকুমেন্টস জমা করার নির্দেশ। কি নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এবং এই নির্দেশ না মানলে কি সমস্যা হতে পারে, দেখে নেওয়া যাক।

Advertisement

চাকুরীকাল অতিক্রান্ত 10 বা 15 বছর। নিয়ম করে পেয়েছেন ইনক্রিমেন্ট। হয়েছেন এ কেটাগরি শিক্ষক। তাও স্বস্তি নেই। ইন সার্ভিস শিক্ষকেরা (WB Primary Teachers) জানেন যে নতুন নিয়ম চালু করেছিল NCTE. যেখানে বলা হয়েছিল, প্রত্যেক কর্মরত শিক্ষককেই পাস করতে হবে 2 বছরের ডি এল এড কোর্স।

Advertisement

এছাড়া 2017 সালের পর থেকে আর ডি এল এড পাশ ছাড়া কাউকেই প্রাথমিক শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ করতে পারবে না পর্ষদ। ফলে যারা 2017 এর আগে ডি এল এড ছাড়াই চাকরিতে যোগ দিয়েছিলেন, তাদের বিষয়ে তৎপর হয় পর্ষদ।

2013-15, 2014-16- এই দুটি ব্যাচ করে ধাপে ধাপে সকল প্রাথমিক শিক্ষকের রেজিস্ট্রেশন করানো হয় ইন সার্ভিস ডি এল এড কোর্স করার জন্য। একজন 40 বা 50 বছরের বেশি বয়স্ক শিক্ষকের কাছে ঐ বয়সে ডি এল এড করা যে কতটা কঠিন সে বিষয়টি তারা বেশ ভালো করেই অনুধাবন করেছিলেন।

আর যাদের 1 বছরের কোনো কোর্স করা ছিলো তাদেরকে করানো হয়েছিল একটি ব্রিজ কোর্স। এর পর থেকেই তারা এ কেটাগরি শিক্ষকে (WB Primary Teachers) পরিণত হয়েছিলেন। কিন্তু দীর্ঘ প্রায় 6 বছর পর এখন প্রত্যেকটি এস আই অফিস থেকেই ডি এল এড এর শুধু সার্টিফিকেটই নয়, চাওয়া হচ্ছে মার্কশিট এর স্বপ্রত্যায়িত জেরক্স কপি।

Advertisement

এই নিয়েই আশংকার মেঘ ঘনিভূত হচ্ছে। তাহলে কি এই ডি এল এড এর ক্ষেত্রেও কোনো দুর্নীতি হয়েছে? সম্প্রতি সি বি আই এর নজরে আছে 2012 সাল থেকে নিযুক্ত শিক্ষক শিক্ষিকাদের লিস্ট। তাদের কথা অনুযায়ী এই শিক্ষক (WB Primary Teachers TET) নিয়োগে নাকি হয়েছে প্রচুর দুর্নীতি।

শিক্ষক শিক্ষিকাদের (WB Primary Teachers) প্রয়োজনীয় নাথিপত্রের ফাইল থাকে সংশ্লিস্ট এস আই অফিসগুলিতে। সেখানেই প্রত্যেকে তাদের দরকার অনুযায়ী সব রকম নথি জমা রাখেন। তথা পুরো বিষয়টি নজরে থাকে এস আই বা এ আই দের। কিন্তু হঠাৎই তড়িঘড়ি নির্দেশ দিয়ে এই গুরুত্বপূর্ণ কাগজগুলি চেয়ে পাঠানোর কারণ খুঁজতে মরিয়া শিক্ষক মহল।

বকেয়া ডিএ নিয়ে রাজ্যের সিদ্ধান্ত আগামী 7 দিনের মধ্যে জানানোর নির্দেশ।

সূত্রের খবর, খোদ পর্ষদ থেকেই চেয়ে পাঠানো হয়েছে নথি গুলি। সম্প্রতি পূর্বের প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতি নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় অপসারিত হয়ে মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশে। এরপর নতুন সভাপতি হিসেবে পদে আসিন হয়েছেন প্রফেসর ড. গৌতম পাল মহাশয়।

সেই মোতাবেক বর্তমানে নবনিযুক্ত সভাপতি হলেন কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ উপাচার্য। নতুন নোটিফিকেশন এর মেমো নম্বর- 359-SED-13015/2/2022-Elemn Sec তারিখ- 22.08.2022. সাথে তৈরী হয় ১১ সদস্যের অ্যাডহক কমিটি।

পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের নতুন সভাপতি প্রফেসর ডক্টর গৌতম পাল মহাশয় নতুন করে নিযুক্ত হয়েই বলেন, ‘কোনও কিছু লুকোবো না, কোনও অস্বচ্ছতা থাকবে না। টেট (WB Primary Teachers TET Exam 2023) হবে প্রতিবছর, প্রত্যেকের অভিযোগ শুনব’।

বুধবারই সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন, ‘আজ থেকে বোর্ডের সমস্ত কাজকর্মের মধ্যে স্বচ্ছতা থাকবে, কিছুই লুকোনো থাকবে না। বোর্ডের কোনও অস্পষ্টতা থাকলে সেটা দূর করার দায়িত্ব আমি নিলাম। যাঁরা টেট প্রার্থী (WB Primary Teachers TET), আগামী দিনে পরীক্ষা দেবেন, প্যানেল বেরোবেই সব স্বচ্ছতার সঙ্গে হবে’।

নিয়োগ দুর্নীতি মামলার মধ্যেই গতকাল প্রাথমিকে (WB Primary Teachers) এই রদবদল হয়। সরিয়ে দেওয়া হয় প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সদস্যদেরও। নতুন করে তৈরি করা হয় নতুন অ্যাডহক কমিটি যার সদস্যপদে আছে ১১ জন।

ব্যাঙ্ক একাউন্ট থেকে ইচ্ছেমত টাকা তুলছেন? জরিমানার অঙ্ক শুনলে চমকে যাবেন।

ড. নৃসিংহ প্রসাদ ভাদুড়ি, ড. স্বাতী গুহ, ড. কৌশিকী দাসগুপ্ত, প্রফেসর অভীক মজুমদার ছাড়াও আরও অনেকে প্রাথমিকের পরিচালন ব্যবস্থায় আসেন। এরপরই হয়তো নতুন তৎপরতা জারি করে নেওয়া শুরু হল চাকুরীরত শিক্ষক – শিক্ষিকাদের ডি এল এড এর মার্কশিট ও সার্টিফিকেটের কপি।

আপনাদের কোনও প্রশ্ন থাকলে নিচে কমেন্ট করুন এবং এমন সব গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি সঠিক ও নির্ভুলভাবে পেতে আমাদের সাথে থাকুন। আর হ্যা, আপনার মূল্যবান কমেন্ট জানাতে ভুলবেন না। ধন্যবাদ।
Written by Mukta Barai.

এই 4 টি উপায়ে কমবে সন্তানের মোবাইল ফোনে আসক্তি।

শেয়ার করুন: Sharing is Caring!

Leave a Comment