RBI Rules – ট্যাক্স ফাঁকি রুখতে, ব্যাংক পোষ্ট অফিসের জন্য নয়া আইন, না মানলে ৫ হাজার টাকা ফাইন।

নতুন বছরের শুরুতেই একাধিক নতুন নিয়ম (RBI Rules) করে ব্যাঙ্কিং পরিষেবাকে অনেকটাই নয়া মোড়কে এনে দিয়েছে রিজার্ভ ব্যাংক (Reserve Bank Of India)। কিন্তু খরচ বৃদ্ধি হচ্ছে গ্রাহকের। প্রথমত যে এসএমএস এলার্ট এর জন্য ১৭ টাকা করে কাটে সেই এসএমএস ঠিক মতো আসে না।

Advertisement

দ্বিতীয়ত প্রতিটি ব্যাংকের মিনিমাম ব্যালেন্স বাড়িয়ে উলটো দিকে সেভিংস একাউন্টে সুদের হার কমানোয় কার্যত আরও বিপদে পড়েছে গ্রাহকেরা। আর এবার আরেকটি নয়া নিয়ম এনে গ্রাহকদের আবার সতর্ক করলো রিজার্ভ ব্যাংক। বিশেষজ্ঞেরা মনে করছেন, অনিয়ন্ত্রিত বিনিয়োগ এবং ট্যাক্স ফাঁকি আটকাতেই এই নিয়ম কড়া করতে চলেছে রিজার্ভ ব্যাংক (RBI Rules)। আর না মানলে আর্থিক জরিমানার মুখে পড়বেন গ্রাহকেরা।

Advertisement

রিজার্ভ ব্যাংকের নয়া আইন (RBI Rules)

এদিন রিজার্ভ ব্যাংক সতর্ক (RBI Rules) করেছে, অনেক গ্রাহকেরাই ব্যাংক, পোষ্ট অফিস, মাইক্রো ফিনান্স, মিউচুয়াল ফান্ড সহ বিভিন্ন অর্থ লগ্নী সংস্থায় টাকা বিনিয়োগ করে যদি নিয়মিত KYC জমা না করেন তবে তারা আইন ভঙ্গ করবেন। শুধু KYC ই নয়, দিতে হবে প্যান, আধার নম্বর। এই দুটি নম্বর না থাকলে ট্রাক করা কার্যত অসম্ভব। প্যান নম্বর লিঙ্ক থাকলে সহজেই বোঝা যাবে গ্রাহক ট্যাক্স ফাঁকি দিচ্ছেন কিনা।

KYC কি?

KYC এর পূর্ণ বাক্য হলো ‘Know Your Customer’। বর্তমানে যেকোনো রকম কাজের ক্ষেত্রে KYC আবশ্যক করা হয়েছে। ভারতের বৃহত্তম ব্যাঙ্ক RBI (Reserve Bank of India) ২০০২ সালে সর্বপ্রথম গাইডলাইন দেওয়ার পর ২০০৫ সালে ৩১শে ডিসেম্বরের মধ্যে চালু করার নির্দেশ দেয়। তারপর সমস্ত NBFCs (Non- banking Finance Company) ব্যাঙ্ক গুলি KYC চালু করে। (RBI Rules)

যদি কোনো গ্রাহক এবং বিনিয়োগকারী আর্থিক ক্ষেত্রে পরিষেবা খুঁজছেন বা বিনিয়োগের কথা ভাবছেন তাহলে সে ক্ষেত্রে KYC ফর্ম পূরণ করা বাধ্যতামূলক। উদাহরণস্বরূপ বলা যেতে পারে, যদি কোনও বিনিয়োগকারী স্বেচ্ছায় একটি মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করতে চান তবে KYC-এর মাধ্যমে সেই ব্যক্তির সমস্ত তথ্য যেমন উক্ত ব্যক্তির পরিচয় পত্র, ঠিকানা এবং প্যান কার্ড নম্বর জানা সম্ভব হবে। এই সমস্ত তহবিলের মাধ্যমে কতৃপক্ষ বিনিয়োগকারীর যোগ্যতার পাশাপাশি ট্রান্সেকশনের ট্র্যাক রাখতে সক্ষম হবে। (RBI Rules)

Advertisement

প্রতিদিন মাত্র ১৫০ টাকা বিনিয়োগে মেয়াদ শেষে পান ১০ লাখ টাকা, পোষ্ট অফিসের নয়া স্কীম।

KYC করার পদ্ধতি (অফলাইন) :

অফলাইনে যদি KYC korte চান তাহলে প্রথমে যে কোনও KRA’s (Know Your Customer Registration Agencies)-এর ওয়েবসাইটে গিয়ে কেওয়াইসি আবেদন ফর্মটি ডাউনলোড করুন। তারপর ফর্মটি সঠিকভাবে পূরণ করে তার সাথে একটি পরিচয়ের আইডি, ঠিকানার প্রমাণ এবং একটি পাসপোর্ট সাইজের ছবি দিতে হবে। আইডি প্রমাণ হিসেবে প্যান কার্ড বা ভোটার কার্ড আধার কার্ড বা ড্রাইভিং লাইসেন্স দিতে পারেন। তারপর প্রয়োজনীয় নথি সহ আবেদন ফর্মটি সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা কতৃপক্ষের কাছে জমা দিয়ে দিন। (RBI Rules)

KYC করার পদ্ধতি (অনলাইন) :

আপনি চাইলে ঘরে বসেও এই পক্রিয়ায় KYC করতে পারেন। KRA ওয়েবসাইটে গিয়ে প্রথমে অ্যাকাউন্ট খুলে যেখানে আবেদনকারীর সমস্ত ব্যক্তিগত তথ্য দিতে হবে। তারপর আঁধার নম্বরের সঙ্গে যুক্ত মোবাইল নম্বর দিতে হবে। ওই মোবাইল নম্বরে একটি ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড (OTP) যাবে। শেষে আধার কার্ডের একটি স্ব-স্বাক্ষরিত কপি ওয়েবসাইটে আপলোড করতে হবে। আবেদন প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হওয়ার পর KRA ওয়েবসাইটে তার স্ট্যাটাস অবশ্যই চেক করে নেবেন। (RBI Rules)

এবার অনলাইনে KYC স্ট্যাটাস দেখতে হলে সংশ্লিষ্ট KRA ওয়েবসাইটে গিয়ে নিজের পাসওয়ার্ড দিয়ে লগ ইন করে প্যান কার্ড নম্বর বা অন্যান্য যথাযথ তথ্য দিয়ে আবেদনের স্ট্যাটাস চেক করে নিন।

 সুদ বৃদ্ধির পর, পোষ্ট অফিসে বিভিন্ন স্কীমে সুদের হার দেখুন এক নজরে।

KYC জমা না করলে কি হবে?

রিজার্ভ ব্যাংকের সর্বশেষ নিয়ম ((RBI Rules)) অনুযায়ী ৩১শে মার্চের মধ্যে KYC জমা না করলে একাউন্ট ফ্রিজ হয়ে যাবে। আর বিনা ডকুমেন্টসে অর্থলগ্নী করলে বড় অঙ্কের আর্থিক জরিমানা হতে পারে। আয়কর আইনে ট্যাক্স ফাঁকি রুখতেই এই কড়া নিয়ম।
অন্যান্য প্রয়োজনীয় তথ্য সম্পর্কে জানতে Ek24.in এর ওয়েবসাইটে চোখ রাখুন। ধন্যবাদ।

কবে থেকে কিনতে পারবেন এলআইসি এর শেয়ার? ইউনিট প্রতি দাম কত?

শেয়ার করুন: Sharing is Caring!

Leave a Comment