Advertisement
mid day meal pm poshan scheme
Advertisement

পড়ুয়াদের স্কুলেই মধ্যাহ্নভোজ করানোর জন্য সর্বশিক্ষা মিশন মিড ডে মিল (Mid Day Meal) স্কীম চালু করে। এবার কেন্দ্রীয় সরকারের ঘোষণায় রাতারাতি বদলে গেল মিড ডে মিলের মোড়ক। এতদিনের নাম বদলে Mid Day Meal এর নতুন নামকরণ হল PM Poshan Scheme। সরকারের এই নামবদল নীতিতে ইতিমধ্যেই বিতর্ক শুরু হয়েছে। সংবাদ সুত্রে জানা যাচ্ছে শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রীর নামটা যুক্ত করতে রাতারাতি স্কুলের মিড-ডে মিল প্রকল্পের নাম পাল্টে দিল কেন্দ্রীয় সরকার। তার নতুন নাম হলো পিএম পোষণ স্কিম ( PM Poshan Scheme )। বুধবার প্রধানমন্ত্রী পোষণ স্কিম চালু করল কেন্দ্রের  সরকার। যার মাধ্যমে দেশের সমস্ত সরকারি এবং সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের দুপুরে রান্না করা খাবার দেওয়া হবে।

Advertisement

সরকারী বিজ্ঞপ্তি দেখুন

অতিমারীর কারনে গত বছর মার্চ মাস থেকে স্কুল বন্ধ থাকলেও বন্ধ হয়নি মিড ডে মিল (Mid Day Meal) স্কীম। মাসের বরাদ্দকৃত সামগ্রী গুলো প্রতি মাসেই অভিভাবকদের হাতে তুলে দেয় স্কুল শিক্ষকেরা। এদিন প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অর্থনীতি বিষয়ক কেন্দ্রীয় ক্যাবিনেট কমিটির বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। রাজ্যগুলির সঙ্গে আলোচনা না করেই জাতীয় মিড ডে মিল প্রকল্পের ( Mid Day Meal) নাম বদল করার যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে তৃণমূল কংগ্রেস। রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু টুইট করে জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় সরকার মিড ডে মিল প্রকল্পের নাম পরিবর্তন করে পিএম পোষণ করলেও তার মধ্যে নতুনত্ব কিছু নেই। এই প্রকল্প চালানোর জন্য রাজ্যকে আগের মতোই ৪০ শতাংশ খরচ বহন করতে হবে। তাহলে শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রীর নাম যুক্ত করতে কেন একটা প্রকল্পের নাম বদল করা হল?

Advertisement

এই প্রকল্পে নতুন কি যুক্ত হচ্ছে?

কেন্দ্রের ঘোষণা অনুযায়ী, পিএম পোষণ স্কিমে ( PM Poshan Scheme ) প্রাক প্রাথমিক এবং সমস্ত সরকারি এবং সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত প্রাথমিক স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের দুপুরে রান্না করা খাবার দেওয়া হবে। তার সঙ্গে স্কুল চত্বরে পুষ্টিকর শাক সবজির বাগান তৈরিতে জোর দেওয়া হবে। আগামী পাঁচ বছরে এই প্রকল্পে কেন্দ্রের আনুমানিক ১,৩০৭৯৫ কোটি টাকা খরচ হবে। রাজ্যগুলির খরচের পরিমাণ ৩১৭৩৩ কোটি ১৭ লাখ টাকা। সারা দেশে প্রথম থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত মোট প্রায় ১১ কোটি ৮০ লাখ ছাত্রছাত্রী এই প্রকল্পের আওতায় আসবে। মোট স্কুলের সংখ্যা ১১ লাখ ২০ হাজার।

EK24 News
Advertisement
Advertisement

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Advertisement