Advertisement
madhyamik 2022 exam center
Advertisement

গত পরশু পশ্চিমবঙ্গ মধ্য শিক্ষা পর্ষদ (WBBSE) মাধ্যমিক পরীক্ষার (Madhyamik Exam 2022) সময়সূচী প্রকাশ করেছে, এবং তার সাথে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা কাউন্সিল (WBCHSE) ও উচ্চমাধ্যমিক (HS Exam) পরীক্ষার সূচী প্রকাশ করেছে। সিদ্ধান্ত হয় উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা হবে নিজের স্কুলে এবং মাধ্যমিক পরীক্ষা হবে বরাবরের মতো অন্য স্কুলে। আর এক রাজ্যে দুই নিয়ম নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। এই সিদ্ধান্ত নিয়ে আপত্তি তুলেছে খোদ রাজ্যের প্রধান শিক্ষকদের সংগঠন অ্যাডভান্সড সোসাইটি ফর হেডমাস্টারস অ্যান্ড হেডমিস্ট্রেসস।

Advertisement
west bengal english medium board

উক্ত সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক চন্দন মাইতি স্কুলশিক্ষা মন্ত্রী ব্রাত্য বসু ও দপ্তরের সচিবকে চিঠি পাঠিয়ে বলেছেন, কোভিড এখনও পুরোপুরি নির্মূল হয়নি। এই কারণে উচ্চমাধ্যমিকের মতো মাধ্যমিকও হোম সেন্টারেই নেওয়া হোক।

প্রধান শিক্ষকদের সংগঠনের দাবি, পর্ষদ এবং সংসদ এই রকম পরিস্থিতিতে দু’রকম পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারে না। তাঁদের প্রশ্ন, হোম সেন্টারে সংসদ পরীক্ষা নিতে পারলে পর্ষদ কেন পারবে না। সংসদ স্কুলগুলোর উপর উচ্চ মাধ্যমিক টেস্ট পরীক্ষা নেওয়া বা না নেওয়ার বিষয়টি ছেড়ে দিলেও পর্ষদ মাধ্যমিক টেস্ট নেওয়ার কথা বলেছে, একই রাজ্যে দুই নিয়ম কার্যত অমূলক।

Advertisement

উচ্চমাধ্যমিক ও একাদশ শ্রেণীর নম্বর বিভাজন দেখুন

Must Read, ছুটির মধ্যেই শিক্ষকদের স্কুলে আসার নির্দেশ

EK24 News

অন্যদিকে অভিভাবকদের মতে উচ্চমাধ্যমিকের চেয়ে মাধ্যমিকের পড়ুয়া বেশি এবং তারা অপেক্ষাকৃত কম বয়সি। তাই এই পরিস্থিতিতে তাদের ও বাড়ির কাছে সেন্টার করা জরুরী। অনেক গ্রামাঞ্চলে কয়েক কিলোমিটার দূরে পরীক্ষার হল পড়ে, কিন্তু নিজের স্কুলে পরীক্ষা হলে সেটা বাড়ির কাছেই হবে। অতিমারী আবহে অনেক দূর পাবলিক যানবাহনে পরীক্ষা দিতে যাওয়া অপেক্ষাকৃত বেশি রিস্কের। একই সাথে রাজ্যের মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীরা ও চাইছে পরীক্ষা হোক নিজের স্কুলে।

Advertisement

অন্যদিকে শিক্ষক, অভিভাবক থেকে শুরু করে অধিকাংশ পড়ুয়ারা যখন চাইছেন মাধ্যমিক পরীক্ষা হোক নিজের স্কুলে, এই বিষয়ে পুনঃবিবেচনা করুক বোর্ড এবং দ্রুত সেই সিদ্ধান্ত ও জানিয়ে দিক। আপনাদের কি মনে হয়, মাধ্যমিক পরীক্ষা কি নিজের স্কুলে হওয়া উচিত? নিচে স্ক্রোল করে কমেন্ট করে জানাতে পারেন।

আরো পড়ুন, পরীক্ষার্থীদের জন্য নির্দেশিকা

Advertisement
Advertisement
49 thoughts on “Madhyamik Exam 2022 – উচ্চমাধ্যমিকের মতো মাধ্যমিক ও নিজের স্কুলে, চিঠি গেল শিক্ষামন্ত্রীর কাছে”
    1. আমি একজন ছাত্রীর বাবা আমি চাই উচ্চমাধ‍্যমিকের মত মাধ‍্যমিক হোক নিজের স্কুলে।

    2. মাধ্যমিক পরীক্ষা নিজের স্কুলে নেওয়াটাই খুব ভালো হবে

      1. Na onno school​e holi valo sobthekei jokhon sob kichu hochchei tokhon onno school ei porikha hok sonar motamot sunte gele to ebaro madhamik hobe na

    3. মাধ্যমিক পরীক্ষা নিজের স্কুলে হওয়া উচিত

    1. হোম সেন্টারে নেওয়া একদম উচিত না।
      কারণ হোম সেন্টারে পরীক্ষা হলে পরীক্ষার অস্বচ্ছতা দেখা দেবে। এমনিতেই সিলেবাস ছোটো করা হয়েছে। তার উপর প্রত্যেক স্কুলের teacher রা চাইবেন তাদের স্কুলের স্টুডেন্ট দের ভালো রেজাল্ট হোক। আর তাই তারাই স্টুডেন্টদের হেল্প করবে। অবাধ নকল করবে স্টুডেন্টরা। তাই সঠিক মূল্যায়ন হবেনা। আর এমনিতেই মাধ্যমিক সেন্টার বেশির ভাগ 3-4 কিমির মধ্যে কোনো স্কুলে পরে। আর বর্তমানে প্রায় সবাই তার থেকে বেশি দূরে ট্রাভেল করে স্টুডেন্টরা।

      আর যদি একান্তই হোম সেন্টারে পরীক্ষা নিতেই হয় তাহলে অবশ্যই পরীক্ষার হলের গার্ড দেওয়ার জন্যে অন্য স্কুলের teacher দের ঠিক করা উচিত। আমি নিজে অনেক স্টুডেন্টদের টিউশন পড়াই। কিন্তু চাই সরকার যেনো সঠিক পথ টাই বেছে নেয়। মূল্যায়ন নিয়ে যেনো কোনো ছেলে খেলা না হয় সেটাই আশা করবো। মেধাবী স্টুডেন্টদের সাথে যেনো কোনো রকমের চিট না করা হয় সেটাই আশা করবো।

    2. উচ্চ মাধ্যমিক নিজের স্কুলে আর আমাদের কেন নয় স্কুলে, এসব চলবে না।

  1. মনে হচ্ছে যে শুধু উচ্চমাধ্যমিকের পড়ুয়াদের-ই ভাইরাস হতে পারে মাধ্যমিকের পড়ুয়াদের তো ভাইরাস হতেই পারে না। ওদের যখন হোম সেন্টারে পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে তো আমাদের পরীক্ষা কেনো হোম সেন্টারে নেওয়া হচ্ছে না ?

  2. Advertisement
    1. মাধ্যমিক পরীক্ষা বাড়ির কাছে স্কুলেই নেওয়া হোক।

  3. মাধ্যমিক পরীক্ষা নিজেদের স্কুল এই নেবা হোক।

  4. Advertisement
  5. হোম সেন্টারে নেওয়া একদম উচিত না।
    কারণ হোম সেন্টারে পরীক্ষা হলে পরীক্ষার অস্বচ্ছতা দেখা দেবে। এমনিতেই সিলেবাস ছোটো করা হয়েছে। তার উপর প্রত্যেক স্কুলের teacher রা চাইবেন তাদের স্কুলের স্টুডেন্ট দের ভালো রেজাল্ট হোক। আর তাই তারাই স্টুডেন্টদের হেল্প করবে। অবাধ নকল করবে স্টুডেন্টরা। তাই সঠিক মূল্যায়ন হবেনা। আর এমনিতেই মাধ্যমিক সেন্টার বেশির ভাগ 3-4 কিমির মধ্যে কোনো স্কুলে পরে। আর বর্তমানে প্রায় সবাই তার থেকে বেশি দূরে ট্রাভেল করে স্টুডেন্টরা।

    আর যদি একান্তই হোম সেন্টারে পরীক্ষা নিতেই হয় তাহলে অবশ্যই পরীক্ষার হলের গার্ড দেওয়ার জন্যে অন্য স্কুলের teacher দের ঠিক করা উচিত। আমি নিজে অনেক স্টুডেন্টদের টিউশন পড়াই। কিন্তু চাই সরকার যেনো সঠিক পথ টাই বেছে নেয়। মূল্যায়ন নিয়ে যেনো কোনো ছেলে খেলা না হয় সেটাই আশা করবো। মেধাবী স্টুডেন্টদের সাথে যেনো কোনো রকমের চিট না করা হয় সেটাই আশা করবো।

    1. ও পণ্ডিত, নকল কি সুধু মাধ্যমিকের পরীক্ষার্থীরা করতে পারবে? উচ্চমাধ্যমিকের পরীক্ষার্থীরা কি পারবে না?

  6. Advertisement
  7. বলছি মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী দের কি ভগবান এক্সট্রা রোগপ্রতিরোধ করার ক্ষমতা দিয়াছে ?
    আমাদেরও নিজের স্কুল এ পরীক্ষা দিতে দেওয়া হোক । একেই কোন মেডাম ঠিক করে online ক্লাস করেনি । কোন subject শেষ করেনি । 10 মিনিট করে আসে আর বলে নেটওয়ার্ক প্রবলেম, আমার এখন টাইম নেই তোরা পরে ক্লাস করিস । এসব বলে কাটিয়ে দেই । যা কিছু পড়েছি নিজে আর টিউশন থেকে । তাহলে এরকম করে এক্সাম নিলে হয় ।

    1. আমি একজন মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী হিসেবে আমার বক্তব্য মাধ্যমিক হোম সেন্টারে হোক এবং পরীক্ষার নাম্বার ও কমানো হোক কারণ এই অতি মারি মধ্যে আমাদের পড়াশোনা অনেক ক্ষতি হয়েছে অতএব হিসেবে আমরা ভালো করে প্রিপারেশন নিতে পারেনি নিতে পারেনি তাই আমাদের আবেদন মাধ্যমিক পরীক্ষার নম্বর কমানো হোক এবং অ্যাক্টিভিটি টাস্ক পর আমাদের বেশি জোর দেয়া হয়েছিল সুতরাং এত নাম্বার দেওয়া উচিত

  8. Advertisement
    1. উচ্চমাধ্যমিক ও মাধ্যমিক পরীক্ষা সেন্টারে হয়।। কেননা দু’বছর লকডাউন এরপর ছেলেমেয়েরা কত পড়াশোনা করেছে তা বোঝা যাবে। তাদের জেনারেল নলেজ কতটুকু আছে। তা মাপা যাবে। শুধু মোবাইল দেওয়ার জন্য পয়সা দিলে রাজ্য সরকারকে হবে না। ছেলেদের পড়াশোনা ডগ এ উঠছে। এর জন্য অনুরোধ রইল যেন হোম সেন্টার বাদ দিয়ে। 2020 সালের মতো আবার পুনরায় আবার সেন্টারে হয়। অনুরোধ রইল শীষ মোহাম্মদ

  9. Madhymik exam 2022 home senter hole kono samossa nai . But onno school er tichers jeno exam senter a thake. Nijer scholer tichers jeno home senter a na thake.

  10. Advertisement
  11. Madhyamik hok nijer school ei. Jotoi activity task deoa hok eivabe school er class korar moto sekha jayna. R ei covid poristhitite bohu student private tuition porar khamota chilo na. R online class se toh jara teacher tara valo jane j Kota student thik thak online class korte pare. Tai mone hoy bairer school a exam dite gele student der ekta vison nervousness kaj korbe sekhane home school a exam hole student der subidha hobe kichuta holeo ektu kom voy kaj korbe. 2 bochor dhore tara school jayni , tution porte pareni ,2 bochor a ektao school exam deyni tai amar mone hoy bairer school a giye exam deoata student der khub chap hobe.

  12. Advertisement
  13. Advertisement
  14. হোম সেন্টার এ পরীক্ষা নেয়া টাই উচিত।।। কারণ উচচমাধ্যমিক স্টুডেন্ট দের থেকে মাধ্যমিক স্টুডেন্টরা বয়সে অনেক ছোট তাই তাদের করা একটু ভাব দরকার শিক্ষা সংসদের ।।।। তার চেয়ে বড় কথা হল উচচমাধ্যমিক
    এর থেকে মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর সংখ্যা অনেক বেশি তাই করোনা পরিস্থতিতে হোম সেন্টার টাই তাদের পক্ষে ভালো হবে।।।।।

  15. উচ্চমাধ্যমিক ও মাধ্যমিক পরীক্ষা সেন্টারে হয়।। কেননা দু’বছর লকডাউন এরপর ছেলেমেয়েরা কত পড়াশোনা করেছে তা বোঝা যাবে। তাদের জেনারেল নলেজ কতটুকু আছে। তা মাপা যাবে। শুধু মোবাইল দেওয়ার জন্য পয়সা দিলে রাজ্য সরকারকে হবে না। ছেলেদের পড়াশোনা ডগ এ উঠছে। এর জন্য অনুরোধ রইল যেন হোম সেন্টার বাদ দিয়ে। 2020 সালের মতো আবার পুনরায় আবার সেন্টারে হয়। অনুরোধ রইল শীষ মোহাম্মদ

  16. Advertisement
  17. অবশ্যই মাধ্যমিক পরীক্ষা সেন্টারে হওয়া উচিত কারণ করোনা পরিস্থিতি এখনো পুরোপুরি স্বাভাবিক হয়নি ।ছাত্র-ছাত্রীদের এখনো ভ্যাকসিনেটেট করার কাজটা টোটাল বাকি আছে। এই পরিস্থিতিতে নিজেদের স্কুলে পরীক্ষা নিলে প্রত্যেকটা স্কুল তাদের নিজেদের মতো করে অ্যারেঞ্জমেন্ট সাজিয়ে নিতে পারবে বা ছাত্রছাত্রীরা স্বাভাবিকভাবে পরীক্ষা দিতে পারবে। প্রয়োজনে ইনভিজিলেটর নিজের স্কুলের না হয়ে অন্য স্কুলের করা যেতে পারে। বাদবাকি অন্য সমস্ত ব্যবস্থা আগের মতই থাকা উচিত বলে আমি মনে করি।

  18. Advertisement
  19. শিক্ষার মান অব্যাহত রাখার জন্য ও পরীক্ষা পদ্ধতির স্বচ্ছতা বজায় রাখার জন্য হোম সেন্টার বাদ দেওয়া উচিত। বিগত বছরগুলির ন্যায় সেন্টার করে মাধ্যমিক পরীক্ষা ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা নেওয়া হোক। বাকি থাকল করোনার কথা। যখন ছাত্র ছাত্রীরা দুর দিগন্তে আত্মীয় বাড়িতে যেতে পারে, অভিভাবকরা মার্কেটে যাচ্ছেন, সপিং করছেন, রাজনীতির ময়দানে জমায়েত করছেন, তখন করোনার কথা মনে থাকেনা। পরীক্ষার সময়ে বা স্কুল খোলার সময়ে যত করোনার বাহানা। আসলে কিছু কিছু সুবিধাবাদী মানুষ আছেন, যারা করোনাকে অজুহাত করে ফায়দা নিতে চাইছেন। এদের জন্য আজ পুরো শিক্ষা ব্যবস্থাটাই ভেঙে পড়তে চলেছে। সরকারের কাছে অনুরোধ স্কুলগুলি খুলেদিয়ে শিক্ষা ব্যবস্থাকে অবিলম্বে সচল করা হোক। তাতে যদি কোনো অভিভাবকের করোনার জন্য অসুবিধা হয়, তবে তিনি তার ছেলে মেয়েকে স্কুলে পাঠাবেন না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Advertisement