Kisan Vikash Patra – পোস্ট অফিসে কিষান বিকাশ পত্রে বিনিয়োগ করলেই মিলবে ২ লক্ষ টাকা।

পোস্ট অফিসে কিষান বিকাশ পত্রে বা Kisan Vikash Patra তে বিনিয়োগকারীদের জন্য সুখবর। বিশেষ করে যারা মধ্যবিত্ত তারা দারুণ উপকৃত হতে চলেছেন এবার। সম্প্রতি সুদের হার বাড়লো এই প্রকল্পে।

Advertisement

Kisan Vikash Patra interest rate calculator

ভারতীয় ডাক বিভাগ এমন এক বিনিয়োগের স্কিম চালু করেছে যেখানে যত কম টাকাই আপনারা বিনিয়োগ করুন না কেন ফেরত পাবেন তার ডবল। কেউ ৫০০০০ বিনিয়োগ করলে পাবেন ১ লাখ, কেউ ১ লক্ষ দিলে ২ লাখ, আবার তেমনি ১০ লক্ষ টাকা দিলে মিলবে ২০ লক্ষ। শুধু তাই নয় এই স্কিমে মিলবে ১০০% গ্যারান্টি সহ রিটার্ন। অর্থাৎ একবার শুধু বিনিয়োগ করার অপেক্ষা। তাহলেই মালামাল হয়ে যাবেন আপনিও। কি এই স্কিম? কারা বিনিয়োগ করতে পারবেন এখানে? কিভাবে বিনিয়োগ করবেন? জানুন আজকের খবরে।

Advertisement

পোস্ট অফিস কিষান বিকাশ পত্র

ভারত সরকার কর্তৃক পরিচালিত কিষান বিকাশ পত্র (Kisan Vikash Patra) একটি জনপ্রিয় দীর্ঘমেয়াদী সঞ্চয়ী স্কিম যা বিনিয়োগকারীদের উল্লেখযোগ্য সুবিধা প্রদান করে। 1988 সালে চালু করা এই স্কিমটি লক্ষ লক্ষ ভারতীয় নাগরিককে তাদের আর্থিক লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করে আসছে।

বিশেষ সুবিধা

১. সুরক্ষিত বিনিয়োগঃ KVP বা কিষান বিকাশ পত্র ভারত সরকার সমর্থিত একটি সরকারি স্কিম, যা এটিকে একটি নিরাপদ এবং নির্ভরযোগ্য বিনিয়োগ বিকল্প করে তোলে।
২. সুদের হারঃ বিনিয়োগকারীরা 7.5% চক্রবৃদ্ধি হারে সুদ পাবেন, যার ফলে তাদের বিনিয়োগ দ্বিগুণ হবে।
৩. বিনিয়োগের মেয়াদঃ এক্ষেত্রে টাকা ডবল করতে গেলে বিনিয়োগকারীদের অবশ্যই ১১৫ মাস বা ৯ বছর ৭ মাসের মেয়াদে বিনিয়োগ করতে হয়।

আরও পড়ুন, পোস্ট অফিসের গ্রাহকদের প্রতি মাসে ২০০০০ টাকা দিচ্ছে। এই স্কীমে কিভাবে আবেদন করবেন?

৪. সুবিধাজনকঃ KVP অ্যাকাউন্ট খোলা এবং পরিচালনা করা সহজ। বিনিয়োগকারীরা ভারতের যেকোনো পোস্ট অফিসে অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন।
৫. ন্যূনতম বিনিয়োগঃ Kisan Vikash Patra এ বিনিয়োগের জন্য কোনও নির্দিষ্ট ন্যূনতম পরিমাণ নেই। বিনিয়োগকারীরা তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী যেকোনো পরিমাণ টাকা বিনিয়োগ করতে পারেন।
৬. কর সুবিধাঃ KVP-এ বিনিয়োগের ওপর আয়কর আইনের ধারা 80C-এর অধীনে কর ছাড়ের সুবিধা পাওয়া যায়।
৭. ঋণ সুবিধাঃ জমা করা টাকার বিপরীতে বিনিয়োগকারীরা ঋণ নিতে পারেন।

Advertisement

আবেদনের যোগ্যতাঃ
১. যেকোনো ভারতীয় নাগরিক বিনিয়োগ করতে পারবেন।
২. যেকোনো বয়েসের ব্যক্তি অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন। নাবালক ও শিশুরাও অভিভাবকের মাধ্যমে অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন।

কিভাবে আবেদন করবেনঃ
১. নিকটবর্তী পোস্ট অফিসে যান।
২. কিষান বিকাশ পত্র (KVP) ফর্ম সংগ্রহ করুন।
৩. ফর্ম পূরণ করে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র (আধার কার্ড, পাসপোর্ট সাইজ ছবি, প্যান কার্ড, বয়সের প্রমাণপত্র) সহ জমা করুন।

আরও পড়ুন, মিউচুয়াল ফান্ডের এই ৫টি টেকনিক জানলেই উপচে পড়বে টাকা।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্রঃ
১. আধার কার্ড
২. পাসপোর্ট সাইজ ছবি
৩. প্যান কার্ড
৪. বয়সের প্রমাণপত্র
৫. কিষাণ বিকাশ পত্র (KVP) ফর্ম

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ
১. মেয়াদ শেষের আগে টাকা তোলা যাবে না।
২. অ্যাকাউন্ট বন্ধ করার জন্য 6 মাস আগে নোটিশ দিতে হবে।
৩. বিনিয়োগ করার আগে অবশ্যই একজন পরামর্শদাতার সিদ্ধান্ত নিন।

কিষান বিকাশ পত্র সম্পর্কে আরও তথ্যের জন্য, আপনার নিকটবর্তী পোস্ট অফিসে যোগাযোগ করুন অথবা ভারতীয় ডাক বিভাগের ওয়েবসাইট দেখুন।
Written by Nabadip Saha.

শেয়ার করুন: Sharing is Caring!

Leave a Comment