Indian Currency – বাজারে ছেয়ে গেছে 500 টাকার জাল নোট। আসল নকল ধরাই মুশকিল। আসল নোটের বৈশিষ্ট্য দেখুন।

ভারতীয় মুদ্রা বা Indian Currency হল আমাদের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস কেনাকাটার ক্ষেত্রে খুবই দরকার পরে। এখনকার দিনে অনলাইনের মাধ্যমে লেনদেন (Online Payment) করা হলেও, এখনো অনেক জায়গা এমন আছে যেখানে আপনারা ক্যাশ টাকা (Cash) ছাড়া। আর কোন কাজ করে উঠতে পারবেন না। কিন্তু যেই জিনিসের যত বেশি প্রচলন বৃদ্ধি পায় ততই সেই নিয়ে অপব্যবহার শুরু হয়ে যায়। আর এবারে ৫০০ টাকার নোট (500 Rupees Note) নিয়েও অনেক ধরণের অপব্যবহার শুরু হয়ে গেছে।

Advertisement

Indian Currency 500 Bank Note Identification Process.

২০০০ টাকার নোট বাতিলের (2000 Rupees Note) পরে এখন বাজারে যে নোটটি সবথেকে বড় নোট (Indian Currency) বলে পরিচিত তা হল ৫০০ টাকার নোট। ৫০০ টাকা নোটের মূল্য অন্যান্য নোটের থেকে বেশি তাই বাজারে এখন বেশি জাল নোট হতে চলেছে ৫০০ টাকার নোটের। বহু মানুষ আছেন যারা ৫০০ টাকার জাল নোট (Indian Currency) এবং আসল নোটের মধ্যে পার্থক্যটা ভালো ভাবে বুঝতে পারেন না। তাই তাদের কাছে বহু জাল নোট চলে আসে এর ফলে তাদের বহু অর্থ নষ্ট হয়।

Advertisement

আজকের এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে ৫০০ টাকা জাল নোট এবং আসল নোট চেনার উপায় সম্পর্কে আলোচনা করব।প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভারতবর্ষে ক্ষমতায় আসার পরে ৫০০ ও ১০০০ টাকার জাল নোট ধরার জন্য নোট বন্দি ঘোষণা করেছিলেন। এরপরে বাজারে ৫০০ ও ২০০০ টাকার নতুন নোট (Indian Currency) চালু হলে প্রতারকরা সেই নোটেরও জাল তৈরি করে ফেলে। ফলে বহু মানুষ এই প্রতারণার শিকার হচ্ছেন।

প্রতারকদের হাত থেকে বাঁচার জন্য ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাংক (RBI) সাধারণ মানুষের উদ্দেশ্যে ৫০০ টাকার আসল নোট (Indian Currency) চেনার উপায় বলে দিয়েছে। আসল ৫০০ টাকার নোটের দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ হবে ১৫০ মিমি, ৬৩ মিমি। নতুন ৫০০ টাকার নোটের রং হল স্টোন গ্রে। এছাড়াও রয়েছে মহাত্মা গান্ধীর ছবি, লালকেল্লার ছবি এবং ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাংকের গভর্নরের সিগনেচার। ভারতীয় ৫০০ টাকার নোটের (Indian Currency 500 Rupees Note) গুরুত্বপূর্ণ তথ্য।

  • ৫০০ টাকার আসল নোটের ডানদিকে অশোক স্তম্ভ এবং বিপরীত পৃষ্ঠে স্বচ্ছ ভারত এর লোগো থাকে।
  • নোটের বাম দিকের বিপরীত পৃষ্ঠে নোটটি কোন বছর ছাপানো হয়েছে সেই সালটি লেখা থাকে।
  • ৫০০ টাকার নোটের বাম দিকের উপরে ও ডানদিকের নিচে একটি সংখ্যার প্যানেল আছে। আর এই প্যানেলের নিচে দেবনাগরী হরফে ৫০০ টাকা লেখা আছে।
SBI Banking (স্টেট ব্যাংক ব্যাংকিং)
  • এই নোটের মাঝামাঝি ডান পাশে একটি সবুজ রঙের সুরক্ষা রেখা রয়েছে। নোটটিকে আড়াআড়ি ভাবে ধরলে ওই সবুজ সুরক্ষা রেখাটিকে নীল রঙের দেখায়। ভালো করে দেখলে বোঝা যায় সুরক্ষা রেখার মধ্য ভারত এবং আরবিআই লেখা আছে।
  • ৫০০ টাকার নোটের (Indian Currency) বাম দিকের ওপরে হিন্দিতে ও ডান দিকের উপরে ইংরেজিতে ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাংক লেখা থাকে।
  • ৫০০ টাকার নোটে ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাংকের প্রতীক এবং গভর্নর (RBI Governor) এর প্রতিশ্রুতি নামা স্বাক্ষর রয়েছে সুরক্ষা রেখার পাশে।

ষ্টেট ব্যাংকে ১ লাখ টাকা রাখলে কত টাকা সুদ পাবেন? কিভাবে বেশি সুদ পাবেন?

বিপরীত পৃষ্ঠে দেখা যায় বিভিন্ন ভাষায় ৫০০ টাকা (Indian Currency) লেখা এবং লালকেল্লার ছবি। ডানপাশে দেখা যায় মহাত্মা গান্ধীর ছবি এবং ৫০০ এর ওয়াটার মার্ক। কিন্তু অনেকেই মনে করতে পারেন, এত সময় কোথায় বা আমরা এই সকল কিছু কি করে বুঝতে পারব? হয়তো এত খুঁটিয়ে দেখাটা সম্ভব না, কিন্তু একজন সচেতন নাগরিক হিসাবে আমাদের উচিত এই সম্পর্কে সকল তথ্য জেনে বুঝে নেওয়া।
Written By Nupur Chattopadhyay.

Advertisement

দ্রুত টাকা বাড়াতে হলে এবং অবসর বয়সে নিশ্চিন্তে কাটাতে হলে এই

শেয়ার করুন: Sharing is Caring!

1 thought on “Indian Currency – বাজারে ছেয়ে গেছে 500 টাকার জাল নোট। আসল নকল ধরাই মুশকিল। আসল নোটের বৈশিষ্ট্য দেখুন।”

  1. যতগুলো আইডেন্টিফিকেশন এ্যাপ্লাই করে জাল নোট কিনা, বুঝতে হবে বলে বলা হলো, তা মনে রেখে হাটে বাজারে ঘুরে ক্রয় বিক্রয় করা কোনো সাধারন মানুষের পক্ষে আদৌ সম্ভব কী? সুপার ডুপার ব্রেনের পক্ষেও সম্ভব নয় বলেই মনে হয়। সে ক্ষেত্রে রাস্তা একটাই। পকেটে ফিতে রাখা, প্রত্যেকটা নোট মেপে দেখতে হবে তো! এবং উল্লিখিত প্রত্যেকটি পয়েন্ট কাগজে লিখে পকেটে রাখতে হবে, যতো পাঁচশো নোট আসুক সব দিক দেখে শুনে নিতে ও দিতে গেলে বেশীদিন লাগবেনা কোনো পাগলা গারদে যেতে। আর তখন নোট গোনার’ও দরকার হবেনা।
    সত্য সেলুকাস কি বিচিত্র এই দেশ!

    Reply

Leave a Comment