বেশি দামে নিজের ধান বিক্রি নিজে করুন। মোবাইল থেকে অনলাইনে সরকারের কাছে ধান বিক্রি করার সহজ উপায় শিখে নিন।

বর্তমানে চালের দাম আকাশ ছোঁয়া। কিন্তু চাষিরা সঠিক দাম পাচ্ছেন না। এর কারন মূলত দুটি, প্রথমত ধান বিক্রির জন্য সঠিক উপায় জানেন না, আর মধ্যখানে ফোঁড়ে রা লাভ নিয়ে যাচ্ছেন। তাই প্রত্যেক কৃষক যদি নিজের ধান নিজে সরকারের কাছে বিক্রি করতে পারেন তবে, কিছুটা লাভের মুখ দেখতে পারেন। এখন জেনে নিন মোবাইলের মাধ্যমে কিভাবে নিজের ধান নিজে কিভাবে সরকারের কাছে বিক্রয় করবেন।

Advertisement

কিভাবে অনলাইনে ধান বিক্রি করবেন?

অনলাইনে ধান বিক্রি করতে হলে প্রথমেই আপনাকে কেন্দ্রীয় সরকারের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে যেতে হবে।
অফিসিয়াল ওয়েবসাইট এর লিঙ্ক নিচে দেওয়া আছে। তবে তার আগে সম্পুর্ন প্রক্রিয়াটি শিখে নিন।
ফার্মার রেজিস্ট্রেশন করতে অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে যেতে হবে।

Advertisement

ফার্মার রেজিস্ট্রেশন:-
ধান বিক্রি করার ক্ষেত্রে ফার্মার রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়াটি আগে সম্পন্ন করতে হবে।
১) অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে ঢুকে একটু নিজের দিকে গিয়ে আপনি ফার্মার রেজিস্ট্রেশনের অপশনটি পেয়ে যাবেন।
২) সেখানে “farmer self registration” অপশনে আপনাকে ক্লিক করতে হবে। সেখানে ক্লিক করে পরবর্তী পেজে গিয়ে পার্সোনাল ডিটেলস বা ব্যক্তিগত তথ্যাবলী যথোপযুক্ত ভাবে ইনপুট করতে হবে বা এন্ট্রি করতে হবে।

৩) ভোটার আইডি কার্ডের নম্বরটি যথাস্থানে লিখে ভেলিডেট অপশনে ক্লিক করতে হবে। যাদের “কৃষক বন্ধু” আছে তাদের ল্যান্ড ডিটেলস এর অপশনগুলি আপনা-আপনি ফিলাপ হয়ে যাবে।
৪) এরপর আপনাকে আধার কার্ডের নম্বরটি এন্ট্রি করাতে হবে এবং এক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে মোবাইল নাম্বার এর সাথে যেন আধার নাম্বারের লিংক থেকে থাকে আগে থেকেই। এটি না হলে আপনি পরবর্তী স্টেপে যেতে পারবেন না।

৫) আপনার যে মোবাইল নম্বরটির সাথে আধার কার্ডের লিংক আছে সেই মোবাইল নাম্বারে একটি ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড বা ওটিপি আসবে। সেটি এন্ট্রি করালেই আপনার নামটি দেখাবে।
৬) জেন্ডার এবং কাস্ট অটোমেটিক এন্ট্রি হয়ে যাবে। তবে এক্ষেত্রে আপনি চাইলে কাস্ট চেঞ্জ করতে পারবেন।

Advertisement

৭) বাবা, মা, স্বামী, স্ত্রী বা অন্য কোন অভিভাবকের নাম এন্ট্রি করাতে হবে।
৮) জেলা বা ডিস্ট্রিক্ট সিলেক্ট করতে হবে।
৯) আপনি কোন ব্লগ বা মুনিসিপালিটির বাসিন্দা তা সিলেক্ট করতে হবে।
১০) ভিলেজ, পোস্টাল পিন কোড, ওয়ার্ড সিলেক্ট করতে হবে।

১১) কোন সেন্টারের ধান বিক্রি করতে চান কিংবা আপনার কাছাকাছি ধান সেন্টারের নাম সিলেক্ট করতে হবে।
১২) ল্যান্ড ডিটেলস সিলেক্ট করতে হবে। জেলা, ব্লক, মৌজা, খতিয়ান নম্বর, দাগ নম্বর, চাষযোগ্য জমির পরিমাণ (ডেসিমাল), নিজের জমি নাকি রেন্ট-এর জমি তা সিলেক্ট করতে হবে।

বদলে গেল ফিঙ্গার প্রিন্ট দিয়ে রেশন তোলার নিয়ম, না মানলে কেউ রেশন পাবেন না।

১৩) ব্যাংকের ডিটেলস দিতে হবে। IFC code, সেভিংস অ্যাকাউন্ট নাকি কারেন্ট একাউন্ট, সিঙ্গেল অ্যাকাউন্ট নাকি জয়েন্ট অ্যাকাউন্ট, জয়েন্ট একাউন্ট হলে দ্বিতীয় ব্যক্তির নাম ইনপুট করতে হবে।
১৪) ডকুমেন্ট আপলোড করতে হবে। ব্যক্তির বর্তমান সময়ের পাসপোর্ট সাইজের ছবি, ভোটার আইডি কার্ডের বোথ সাইডের স্ক্যান কপি, ল্যান্ডের ডিটেলস (খতিয়ান,পর্চা), ব্যাংক একাউন্টের পাসবুকের প্রথম পেজ আপলোড করতে হবে।

১৫) এরপর নীচে খতিয়ান নম্বর আপলোড করতে হবে।
১৬) সমস্ত নথি বা ডকুমেন্টস দেওয়ার পর আপলোডে ক্লিক করতে হবে।
১৭) এরপর আপনার ফর্মটি প্রিভিউ হবে এবং আপনাকে শেষবারের মতো পুঙ্খানুপুঙ্খ ভাবে দেখে নিতে হবে আপনার ফর্ম টি তে সমস্ত নথি গুলি সঠিকভাবে বসেছে কিনা।
১৮) যদি সমস্ত নথিগুলি সঠিকভাবে বসে থাকে তবে “I agree” এবং “confirm registration” তে ক্লিক করে এগিয়ে যাবেন। এর মাধ্যমে আপনি অনলাইনে ধান বিক্রির ক্ষেত্রে অনেকটা এগিয়ে যাবেন।

রেজিস্ট্রেশন নম্বর পাবেন কিভাবে?
ধান বিক্রির ক্ষেত্রে আপনাকে রেজিস্টেশন নম্বরটি আগে সংগ্রহ করতে হবে। ধান বিক্রির ক্ষেত্রে এটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। আপনার ফিল্ড অফিসার বা পারচেস অফিসার আপনার ডকুমেন্ট গুলি ভেরিফাই করার পর কয়েকদিন বাদে আপনি এসএমএস এর মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন নম্বরটি জানতে পারবেন। এরপর রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেটটি সংগ্রহ করার ক্ষেত্রে আপনাকে আবার অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে আসতে হবে। অফিশিয়াল ওয়েবসাইটটি হল – https://procurement.wbfood.in/index.aspx .

খবরদার! ধনতেরাসে ভুলেও ঘরে আনবেন না এই জিনিস গুলি। আনলেই বিপদ!

১) ওয়েবসাইটে এসে উপরে “farmer” অপশনে ক্লিক করার পর “farmer reg. Certificate download” অপশনে আপনাকে ক্লিক করতে হবে।
২) এরপর আপনাকে রেজিস্ট্রেশন নাম্বারটি সঠিক জায়গায় ইনপুট করে পাশে “generate otp” অপশনে ক্লিক করতে হবে।

৩) এরপর পাওয়া ওটিপি-টি তৎক্ষণাৎ নিচে “enter otp” অপশনে বসাতে হবে এবং পাশে “validate and generate certificate” অপশনে ক্লিক করলে আপনার রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেটটি আপনি ডাউনলোড করে নিতে পারবেন। এরপর আপনি সেটি প্রিন্ট আউট করে সযত্নে রেখে দিতে পারবেন। ধান বিক্রির ক্ষেত্রে প্রিন্ট আউটটি লাগবেই।

পরবর্তীকালে ধান বিক্রি করার ক্ষেত্রে এবং ডেট বুক করার ক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই এই রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেটটি দেখাতে হবে। এবিষয়ে আপনাদের কোন প্রশ্ন বা বক্তব্য থেকে থাকলে নিচে কমেন্ট বক্সে জানাতে পারেন। এরকম আরো খবর পেতে চোখ রাখুন আমাদের ওয়েবসাইট।
Written by Raju.

শেয়ার করুন: Sharing is Caring!

Leave a Comment