রাজ্যের সমস্ত মেয়েদের ঘরে বসে রোজগারের সুযোগ করে দিল পশ্চিমবঙ্গ সরকার, কিভাবে আবেদন করবেন?

মেয়েদের ঘরে বসে রোজগারের সুবর্ণ সুযোগ, নতুন উদ্যোগ সরকারের।

মহিলাদের স্বনির্ভর করে তোলাই রাজ্য সরকারের একমাত্র লক্ষ্য। তাই মেয়েদের ঘরে বসে রোজগারের সুযোগ করে দিলো সরকার। এর আগে একাধিক প্রকল্পের মাধ্যমে রাজ্যের গ্রামীণ এলাকার সমস্ত মহিলাদের আর্থিকভাবে স্বনির্ভর করে তোলার জন্য রাজ্য সরকারের তরফে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যেই সেই সমস্ত প্রকল্পের সুফল মহিলারা পাচ্ছেন।

Advertisement

বিশেষ করে সম্প্রতি চালু হওয়া লক্ষ্মীর ভান্ডারের মতো প্রকল্পের মাধ্যমে প্রতি মাসে রাজ্যের সমস্ত মহিলারা ১ হাজার এবং ৫০০ টাকা করে ভাতা পাচ্ছেন। যে টাকা দিয়ে সামান্য হলেও সংসারের কাজে লাগানো সম্ভব হচ্ছে। এবার রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে মহিলাদের সম্পূর্ণ বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ দিয়ে নিজের পায়ে দাঁড়ানো এবং মেয়েদের ঘরে বসে রোজগারের জন্য কর্মসংস্থানের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

Advertisement

গ্রামীণ সমস্ত বিবাহিত এবং অবিবাহিত মহিলারা যারা কোনো চাকরি বা কাজের সঙ্গে যুক্ত নন, তারা সরকারের এই নতুন উদ্যোগে শামিল হতে পারেন। এখান থেকে বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ পাবেন। শুধু তাই নয়, প্রশিক্ষণ চলাকালীন মেয়েদের ঘরে বসে রোজগার বা টাকা আয় করার সুযোগও থাকছে। এবার দেখে নেওয়া যাক, কোন দপ্তরে, কিভাবে, কত দিনের প্রশিক্ষণ নিতে পারবেন মহিলারা, কিভাবে আবেদন করতে হবে, এই সম্বন্ধে বিস্তারিত।

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অধীনস্থ দপ্তর রেশম খাদি এবং পল্লী শিল্প সমিতির উদ্যোগে রাজ্যের গ্রামীণ বিবাহিত এবং অবিবাহিত মহিলাদের সম্পূর্ণ বিনামূল্যে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। মহিলারা অম্বর চরকার মাধ্যমে মসলিন সুতো কাটা থেকে শুরু করে বস্ত্র তৈরীর প্রশিক্ষণ নিতে পারবেন। প্রশিক্ষণ চলাকালীন মহিলারা যখন মসলিন সুতো কাটবেন,তখন প্রতিটি মহিলাকে মসলিন সুতো কাটার জন্য লাচ্ছি পিছু ৯ টাকা ৩০ পয়সা করে দেওয়া হবে।

ফলে শুধুমাত্র বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ নয়, তার সঙ্গে মেয়েদের ঘরে বসে রোজগারের সুযোগ বা বেশ কিছু টাকাও আয় করতে পারবেন মহিলারা। প্রশিক্ষণ শেষে রাজ্য সরকারের উদ্যোগে মহিলারা বিভিন্নভাবে কাজ করার সুযোগ পাবেন। এবং সমস্ত প্রক্রিয়াই গ্রামীন ক্ষুদ্র শিল্পের অধীনে থাকবে। তাই প্রশিক্ষণ নিতে এবং কাজ পেতে এক টাকা ও লাগবে না। এবার জেনে নিন মেয়েদের ঘরে বসে রোজগারের সুযোগ প্রকল্পে আবেদন করার নিয়ম, যোগ্যতা ও কি কি ডকুমেন্টস লাগবে।

Advertisement

রেশন সামগ্রী নিয়ে আর ডুপ্লিসিটি নয়, ওজনে কম কিংবা নিম্নমানের রেশন দেওয়া চলবে না।

প্রশিক্ষণ নেওয়ার জন্য যোগ্যতা:
১. আবেদনকারী মহিলাকে পশ্চিমবঙ্গের স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।
২. আবেদনকারী মহিলার আধার কার্ড এবং ভোটার কার্ড থাকতে হবে।
৩. আবেদনকারী মহিলাকে সম্পূর্ণ বেকার হতে হবে।
৪. পারিবারিক আয় যথেষ্ট কম থাকতে হবে।

কিভাবে আবেদন করবেন:
নিজের আধার কার্ড, ভোটার কার্ড, ইনকাম সার্টিফিকেট, রেসিডেন্সিয়াল সার্টিফিকেট এবং পাসপোর্ট সাইজের ছবিসহ স্থানীয় পঞ্চায়েত বা ব্লক অফিসে গিয়ে বিনামূল্যে এই প্রশিক্ষণ নেওয়ার জন্য আবেদন করতে হবে। এরপর লিস্ট বাছাই করে প্রশিক্ষণের জন্য ডেকে নেওয়া হবে। এই প্রশিক্ষণ নিজের এলাকায় হবে, তাই সংসারের কাজ সামলে সহজেই এই কর্মশালায় অংশ নিতে পারবেন সকলে।

এই যোজনায় পরিবারে সকলে পাবে ৬ হাজার টাকা, কিভাবে আবেদন করবেন জানুন।

আবেদনের সময়সীমা:
রেশম খাদি ও পল্লী শিল্প সমিতির উদ্যোগে মেয়েদের ঘরে বসে রোজগারের সুযোগ প্রশিক্ষণ ৭ই নভেম্বর থেকে শুরু হয়ে গিয়েছে। চলবে ৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত। তাই যে সমস্ত মহিলারা এই প্রশিক্ষণ নিতে ইচ্ছুক তারা শীঘ্রই যোগাযোগ করুন। এবং আরও বিস্তারিত তথ্যের জন্য আমাদের ওয়েবসাইট ফলো করুন ও কোনও প্রশ্ন থাকলে নিচে কমেন্ট করুন। অথবা নিজস্ব পঞ্চায়েত বা মিউনিসিপালিটিতে যোগাযোগ করুন।
Written by Rajib Ghosh.

শেয়ার করুন: Sharing is Caring!

Leave a Comment