Advertisement
Government Employees Service Rules (সরকারি চাকরিতে ছাটাইয়ের নিয়ম)
Advertisement

সরকারি চাকরি একটা জুটলেই, কেল্লাফতে, সারা জীবন নিশ্চিন্ত। চাকরি শেষে মোটা টাকার প্যাকেজ। আর এই ভাবনা থেকেই সকলেই একটা সরকারি চাকরি জোটানোর আশায় দিনরাত লড়াই করতে থাকেন। চাকরিটা জুটলেই ভাবনা তৈরি হয়ে যায়, আর যাই হোক, বেসরকারি সংস্থার মতো যখন তখন কাজ না করলে চাকরিটা কেউ কেড়ে নিতে পারবে না।

Advertisement

তাই যখন খুশি দপ্তরে আসা যায়, আবার ইচ্ছা হলেই অফিস থেকে বেরিয়ে বাড়ির দিকে রওনা হওয়া যায়, সরকারি চাকরি করলে অধিকাংশ চাকরিজীবীদের মনের ভেতরে এই ভাবনা ঘুরঘুর করে। আর তাই সরকারি চাকরিজিবীরা বাস্তবে একেবারে নিশ্চিন্তে রাজার হালে যা খুশি তাই করেন, আর এর ফলে দেশের সাধারণ মানুষ সমস্যার সম্মুখীন হন। তারা সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে গিয়ে সঠিকভাবে পরিষেবা পান না। এই রিপোর্ট উঠে এসেছে ভারতীয় রেলে চড়া যাত্রীদের নিয়ে করা সমীক্ষায়।

Advertisement

তবে এরকম ধরনের ভাবনা যে সমস্ত সরকারি চাকরিজীবীর মধ্যে রয়েছে, তারা এবার একটু ভাবনার বদল করার চেষ্টা করুন। কারণ আর আগের মতো নয়, এবার কাজ ঠিকভাবে না করলে সরকারি চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হবে, এই নীতি ইতিমধ্যেই নেওয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। আর আগামী বছর অর্থাৎ ২০২৩ সাল থেকে দেশে শ্রম কোড চালু হওয়ার সাথে সাথে এটা চালু হয়ে যাবে। মোদী সরকার আসার পর থেকে অনেক সরকারী দপ্তর এমনিতেই বুঝে গেছেন সুখের দিন শেষ। আর এবার আরও কঠিন সময় আসতে চলেছে।

Advertisement

সরকারি চাকরিতেও ছাটাই প্রক্রিয়া শুরু হলো

আর এই প্রক্রিয়া ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে রেলের কর্মচারীদের দিয়ে। ভারতীয় রেলে গত ১৬ মাসে মোট ১৩৯ জন আধিকারিককে অবসর নিতে বাধ্য করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, ৩৮ জনকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। রেলের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব এই বিষয়ে খুব কড়া। ২০২১ সালের জুলাই মাস থেকে অযোগ্য এবং দুর্নীতিগ্রস্ত কর্মীদের ভারতীয় রেল বাদ দেওয়া শুরু করেছে।

চলতি সপ্তাহে ২জন উচ্চপদস্থ রেল আধিকারিকের চাকরি গিয়েছে। ৫ লক্ষ টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগে সিবিআই তাকে হাতেনাতে পাকড়াও করে। আরেকজনকেও ৩ লক্ষ টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগে পাকড়াও করা হয়। এই ২ জন রেল আধিকারিক এর চাকরি চলে গিয়েছে। আর এরপর শুরু হয়েছে এয়ার ইন্ডিয়ার স্থায়ী কর্মীদের ও। পশ্চিমবঙ্গ সহ একাধিক রাজ্য সরকার শ্রম কোড মেনে নিয়েছেন। তাই এই আইন পশ্চিমবঙ্গেও চালু হবে।

EK24 News

এদিকে, যে ১৩৯ জনের সরকারি চাকরি চলে গিয়েছে, তাদের মধ্যে এমন বেশ কিছু আধিকারিক আছেন যারা পরোক্ষভাবে চাকরি ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন। ভারতীয় রেল প্রথমে অন্য শাস্তি দিয়েছিল। পদোন্নতি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। কাউকে ছুটিতে পাঠানো হয়েছিল। তারপরে তাদের মধ্যে অনেকেই VRS নিয়ে নেন।

Advertisement

২০২১ সালে রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই আধিকারিকদের স্পষ্ট করে দিয়েছেন, কাজ না করতে হলে ভিআরএস নিয়ে বাড়িতে বসে থাকুন। রেলমন্ত্রীর নীতি, ভালো কাজ করো, নয়তো বিদায় নাও। আর মোদী সরকার আসার পর ফিঙ্গার প্রিন্ট উপস্থিতি, অনলাইন ব্যবস্থাকে আরও কড়া করা হয়েছে, যাতে সময়ের আগে কেউ না জেতে পারে। সার্ভিস বুক অনলাইন করা হয়েছে, যাতে ঠিকমতো আপডেট হয়, ছুটি নিয়ে ক্লার্ক কে দু পয়সা দিয়ে সেটা সার্ভিস বুকে না তোলার ঘটনা যেন না ঘটে।

শুধু যে অসাধু দুর্নীতিগ্রস্ত আধিকারিকদের বিরুদ্ধেই পদক্ষেপ করা হয়েছে তাই নয়, যে সমস্ত কর্মীরা ঠিকমতো চাকরিতে দায়িত্ব পালন করছেন না, তাদেরকেও সরে যেতে বলা হয়েছে। কারন এমন অনেক পুরনো রেল কর্মী রয়েছেন যারা সিগন্যালিং, মেকানিক্যাল, ইলেকট্রিক্যাল, ট্রাফিক ইত্যাদি সমস্ত ক্ষেত্রে প্রযুক্তির উন্নতির সঙ্গে খাপ খাইয়ে উঠতে পারেননি। তাদের চিঠি ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে। মেডিকেল এবং সিভিল সার্ভিসের কর্মীদেরও বাদ দেওয়া শুরু হয়েছে।

DA চাইতে গিয়ে আজ আবার মার খেলো পশ্চিমবঙ্গের সরকারি কর্মচারীরা।

শ্রম কোডের নতুন আইনের নিয়মে ৩ মাসের নোটিশ বা ৩ মাসের মাইনে দিয়ে বরখাস্ত করা যায় বা অবসর দেওয়া যায়। পেনশন বিধি ১৯৭২ অনুযায়ী বিশেষ ক্ষেত্রে একজন সরকারি কর্মীকে বাধ্যতামূলক অবসর দেওয়া যায়।
VRS নিলে কর্মীদের যতদিন চাকরি বাকি ছিল তত বছরের প্রতি ২ মাসের বেতন পাবেন। তবে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হলে সেই সুবিধা দেওয়া হয় না।

Advertisement

সকল SBI গ্রাহকদের নম্বর বদল, আজই আপডেট করুন, তার আগে জেনে নিন কি করতে হবে।

শুধুমাত্র রেলেই নয়, কেন্দ্রীয় ও একাধিক রাজ্য সরকারের সমস্ত দপ্তরেই কর্মীদের দক্ষতা বৃদ্ধি এবং দুর্নীতিমুক্ত করার বিষয়ে জোর দেওয়া হচ্ছে। তাই যে সমস্ত সরকারি কর্মীদের মধ্যে আসি যাই মাইনে পাই, কোনো চিন্তা নাই—- এই ধরনের ভাবনা রয়েছে, তাদের সরকারি চাকরি খোয়াতে হতে পারে। এই ব্যাপারে আপনার মতামত নিচে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।
Written by Rajib Ghosh.

Advertisement
Advertisement
21 thoughts on “2023 সাল থেকে সরকারি চাকরিতে ছাটাই প্রক্রিয়া চালু, মন্ত্রীসভায় অনুমোদন, জেনে নিন কি কি কারণে চাকরী যেতে পারে।”
  1. সরকারী চাকুরেদের কাজ না করলে বা ফাঁকি দিলে চাকরী থেকে বরাখাস্ত হতে পারেন। যারা যারা ঠিক জায়গায় তেল মারতে পারবেন তারা বরখাস্ত হবেন না। কর্মঠ, স্বাধীনচেতা ব্যক্তিরা বিপদে পড়বেন। ঘুষ খোর দের চিহ্নিত করা যাদের কাজ, তারাই ওদের কাছ থেকে ঘুষ খান। মাঝখান থেকে সৎ , দক্ষ ও স্বাধীনচেতা কর্মীরা চিরকাল ভুগছে, আরো ভুগবে।

    1. সরকারি চাকরির অভ্যন্তরে যে অলিখিত ব্যবস্হা ছিল,তা আরও মান্যতা পাবে।তোষামোদকারীরা আরও শক্তিশালী হবে,অসাধু আধিকারিকরা স্বেচ্ছচারিতা বাড়িয়ে দেবে আর এর বলি হবে সৎ,উপযুক্ত,নিয়মানুবর্তী,আইন মেনে চলা সাধারণ কর্মীরা যারা তোষামোদী,তৈল মর্দন ইত্যাদি কলাগুলো রপ্ত করতে জানেনা।

    1. এই সিদ্ধান্ত টা অনেক দিন আগে নেওয়া দরকার ছিল। এটা যেন সমস্ত সরকারি কর্মচারী
      দের জন্য লাগু হয় এবং তাড়াতাড়ি।

    1. সঠিক সিদ্ধান্ত। কিন্তু দেখতে হবে এর প্রয়োগ যেন রাজনৈতিকভাবে প্রভাবিত না হয়।

  2. Advertisement
  3. হিম্মত থাকলে করে দেখাক। ভোটের ভয়, ক্রমবর্ধমান বেকারি, বেরোজগারি, চরম দারিদ্রতার আসু সমাধানে অনীহা, এইসব কি ওদের ছেড়ে দেবে? একেই বলে নিজের কবর নিজেই খোড়া। চোরের মায়ের আবার বড় গলা।

  4. Advertisement
  5. 100% correct If this rules implemented on central and all the state government it would be great for our country.

    1. Its a very good decision but
      should be implemented firmly
      especially in RAILWAY as gangmens are utilised in railway
      as a house servant/forcefully in
      offices/ and other various types
      of illegal jobs in which they are not recruited for .These are
      done by some officers in railway .घर की खेती समझ रखा है ऑफिसर ने !

  6. Advertisement
  7. Right decision in right time. It is a brave decision for Central Govt. & State Govt. also. This rule should be implemented soon w.e.f 1st December 2022. Thanks for both the Govt. Official administration.

    1. All of the central minister are hereby intimated congratulation, our country is highly progress in this system or rule & regulation. I hope that be quick be fast develope our country. Joy hind joy bharat

  8. If the rules are implemented property, it will be the very good step for our company. But it may be politics free, face known free and bribe free.

  9. Advertisement

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Advertisement