Consumer Rights – পশ্চিমবঙ্গের সরকারী কর্মীরা এবার কাজে ফাঁকি দিলেই 10 হাজার টাকা জরিমানা। নতুন নিয়ম চালু।

কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারী কর্মীদের সকলের জন্য সার্ভিস রুল তথা Employee Service Rules and Consumer Rights Act থাকে। যেখানে কর্মীদের কাজ ও কর্তব্যের বিভিন্ন নিয়ম লিপিবদ্ধ থাকে। আর সময়ের সাথে তা কখনও কখনও পরিবর্তিত হয়। আর এবার পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সরকারী কর্মীদের ও নতুন একটি নিয়ম চালু হওয়ার কথা জানা গেছে। যেখানে জরিমানার কথা উল্লেখ থাকবে। এর আগেও এই নিয়ম চালু থাকলেও এবার যাতে সেই নিয়ম আরও কড়া ভাবে বলবৎ হয়, সেই পথা হাটছে নবান্ন। কোন কোন ক্ষেত্রে এই Consumer Rights নিয়ম বিস্তারিত জেনে নিন।

Advertisement

West Bengal Consumer Rights Act 2023

প্রায় সকলেই চান সরকারি চাকরি (Government Service) করতে। কারণ অধিকাংশ মানুষই মনে করেন, সরকারি চাকরিই হলো সবথেকে সুখের চাকরি‌। তবে এবার সেই ধারণার বদল আনতে নতুন উদ্যোগ নিতে চলেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এখন থেকে কর্মস্থলে কোনও কর্মীর গাফিলতি ধরা পড়লে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা ধার্য করা হবে বলে জানিয়েছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী। মূলত সরকারি কর্মচারীদের তাদের কাজের প্রতি আরো দায়বদ্ধতা গড়ে তুলতেই রাজ্য সরকারের তরফে এইরূপ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

Advertisement

কাজে গাফিলতি হলেই জরিমানা

মূলত বিগত ২০১৩ সাল থেকে জন পরিষেবা অধিকার আইন (Consumer Rights Act 2023) চালু করেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর এই আইনে স্পষ্টভাবে বলা হয়েছিল, কর্মক্ষেত্রে কোনও কর্মীর গাফিলতি ধরা পড়লে তার ১০০০ টাকা জরিমানা করা হবে। তবে, এবার বাড়ানো হতে চলেছে জরিমানার পরিমাণ। শুধু তাই নয়। জরিমানা বৃদ্ধির সাথে সাথে এই নিয়ম সহজে কার্যকর করার ও পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

জরিমানার পরিমান বৃদ্ধি

১০০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে জরিমানার পরিমাণ ১০০০০ টাকা করা হতে চলেছে বলে জানা গিয়েছে। পাশাপাশি, কোনো কর্মীর কাজে গাফিলতি ধরা পড়লে যেমন তাকে জরিমানা দিতে হবে তেমনই কোনো গ্রাহক যদি সরকারি দফতরে গিয়ে সঠিক সহযোগিতা না পান সেক্ষেত্রে Consumer Rights অনুযায়ী তিনিও সেই কর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানাতে পারেন। আর এক্ষেত্রে তখন সেই কর্মীর গ্রাহককে সঠিকভাবে সহায়তার (Consumer Rights) না করার কারণটি উল্লেখ করতে হবে।

উল্লেখ্য, অসহযোগিতা করা সেই কর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানোর পরেও গ্রাহকেরা উপযুক্ত কোনো প্রতিকার না পেলে তাদের উচ্চপদস্থ ব্যক্তিদের কাছে অভিযোগ (Employee Service Rules) জানাতে হবে। এরপরেও সেখানেও কোনো প্রতিকার না পেলে তাদের নবান্নের দ্বারস্থ হতে হবে। এবং তারপর পরবর্তী পদক্ষেপ হিসেবে আরও ঊর্ধ্ব কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ জানাতে হবে গ্রাহকদের। তবে এই পদ্ধতিটা (Consumer Rights) অনেকটাই সময় সাপেক্ষ।

Advertisement

Consumer Rights Act 2023

আর তাই এই নিয়মকে আরও সহজ করে তুলতে এবার থেকে সার্ভিস রুল তথা Employee Service Rules এ নতুন অনুচ্ছেদ রাখা হচ্ছে। যেখানে প্রথমবার অভিযোগ জানানোর পর যদি সমাধান না পাওয়া যায় তাহলে সেই অভিযোগকারী ব্যক্তি চলে যেতে পারেন জন পরিষেবা অধিকার কমিশনে এবং সেখানেই অভিযুক্ত কর্মচারীর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে পারবে কমিশন।

আরও পড়ুন, ভুয়ো আধার কেন্দ্রে আধার কার্ডের কাজ করাচ্ছেন না তো? সতর্ক করলো কেন্দ্র সরকার।

কোন কোন পরিষেবার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য

  • রেশন কার্ড
  • বার্থ ও ডেথ সার্টিফিকেট
  • জমির মিউটেশন
  • ড্রাইভিং লাইসেন্স

উপরোক্ত সমস্ত পরিষেবা রাজ্য সরকার দিয়ে থাকে। আর এই সমস্ত জরুরী কাজে (Consumer Rights) অযথা গ্রাহক হয়রানি এড়াতে এই নতুন আইন চালু করতে চলেছে রাজ্য সরকার। এই সমস্ত পরিষেবার ক্ষেত্রে গাফিলতি করা হচ্ছে কিনা সে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে নবান্নের তরফে। তবে রাজ্যের সকল মানুষের সুবিধার পাশাপাশি রাজ্য সরকারি কর্মীদের তাদের কাজে প্রতি আরো দায়িত্বশীল করে তুলতে রাজ্য সরকারের তরফে গৃহীত এই পদক্ষেপটি প্রশংসিত হচ্ছে সর্বত্রই।

Jaago Prakalpa (জাগো প্রকল্প)

প্রসঙ্গত একাধিক সরকারী কাজে ফাইল নিচতলা থেকে উপর তলায় যেতে বছরের পর বছর লেগে যায় বলে বহুদিনের অভিযোগ। এমনকি ফাইলের ভেতরে খাম না গুজে দিলে নাকি সেগুলো পুরনো ফাইলের নিচে চাপা পড়ে যায়! নতুন জুতো কিনে সেই জুতো না ছেঁড়া পর্যন্ত নাকি ফাইল ক্লিয়ার হয়না। আর সেই সমস্ত রেওয়াজ বা অভিযোগ আর শুনতে চায়না রাজ্য সরকার। তাই এই নিতুন নিয়ম চালু (Consumer Rights) করার কথা বলা হয়েছে। এতে একদিকে কর্মীদের তৎপরতা যেমন বাড়বে, তেমনি গ্রাহকের ভোগান্তি কমবে। এই বিষয়ে (Employee Service Rules) আপনার মতামত নিচে কমেন্ট করে জানাতে পারেন।

আরও পড়ুন, পশ্চিমবঙ্গের বকেয়া ডিএ নিয়ে, সুপ্রিম কোর্টে জরুরি আপডেট।

শেয়ার করুন: Sharing is Caring!

Leave a Comment