Advertisement
Single Cigarette ban in India (সিগারেট বিক্রয় নিষিদ্ধ)
Advertisement

সিগারেটের (Cigarette) ধোঁয়ার কুণ্ডলী ছাড়তে ছাড়তে খোশমেজাজে সুখ টান এবার বন্ধ হতে চলেছে। ধূমপায়ীদের সুখটানে এবার রাশ টানতে উদ্যোগী হয়েছে সরকার। সংসদের স্থায়ী কমিটি সরকারের কাছে যে প্রতিবেদন পেশ করেছে, সেখানে সিঙ্গেল সিগারেট (Cigarette Ban) বিক্রির উপর নিষেধাজ্ঞা জারির সুপারিশ করা হয়েছে।

Advertisement

তামাক নিয়ন্ত্রণ অভিযানে যাতে কোনো প্রভাব না পড়ে তাই সিঙ্গেল সিগারেট বিক্রি নিষিদ্ধ করার সুপারিশ করেছে সংসদের স্থায়ী কমিটি। কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে কমিটির পক্ষ থেকে এই সুপারিশ করে বলা হয়েছে, দেশের বাজারে খুচরো সিগারেট বিক্রি নিষিদ্ধ করতে হবে। কারণ তামাক নিয়ন্ত্রণ অভিযানের উপর প্রভাব পড়ছে। পাশাপাশি কমিটির তরফে বিমানবন্দরে স্মোকিং জোন বন্ধ করার সুপারিশ করা হয়েছে।

Cigarette may Ban in India

সংসদের স্থায়ী কমিটির এই সুপারিশের পর কেন্দ্রীয় সরকার খুচরো Cigarette বিক্রি এবং উৎপাদন নিষিদ্ধ করতে পারে। এর আগে স্বাস্থ্যমন্ত্রকের সুপারিশে কেন্দ্রীয় সরকার ই- সিগারেট নিষিদ্ধ করেছিল। আইন তৈরি করা হয়। এবারও সেই একই ভাবে আইন তৈরি করতে চলেছে সরকার।
Parliament Standing Committee-র তরফে যে রিপোর্ট দেওয়া হয়েছে, সেখানে আরো বলা হয়েছে, দেশে জিএসটি চালু হওয়ার পরেও তামাকজাত (Tobacco) পণ্যের উপরে কর বাড়ানো হয়নি।

Advertisement

IARC-র রিপোর্ট উল্লেখ করে জানানো হয়েছে, অ্যালকোহল এবং তামাক সেবন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়।
সংসদের গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়ার কাজকে আরো সহজ করার জন্য এই স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়। সংসদে মূলত দুই ধরনের কমিটি হয়। একটি স্থায়ী কমিটি এবং দ্বিতীয়টি অ্যাডহক কমিটি। লোকসভা এবং রাজ্যসভার সাংসদরা এই স্থায়ী কমিটিতে থাকেন। স্থায়ী কমিটির সদস্যদের মেয়াদ এক বছরের জন্য বহাল থাকে। সংসদের স্থায়ী কমিটির রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করে কেন্দ্রীয় সরকার বিভিন্ন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে থাকে। সংসদের কাজকে আরো সহজ করে দেয় এই কমিটি।

আবাস যোজনার টাকা ফেরত দিতে হবে, 2 তলা বাড়ি থাকলেও অনেকে টাকা পেয়েছে। 

কমিটির তরফে যে রিপোর্ট পেশ করা হয়েছে, সেখানে বলা হয়েছে, সরকার বহুবার ধূমপান (Smoking) বন্ধ করার জন্য প্রক্রিয়া শুরু করলেও তা সফল হয়নি। ধূমপানের কারণে দেশে প্রতি বছর ৩.৫ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়। জাতীয় অর্থনৈতিক গবেষণা পরিষদের একটি সমীক্ষায় জানা যায়, ধূমপায়ীদের মধ্যে ১৬ শতাংশ কলেজের ছাত্র এবং ৪৬ শতাংশ মানুষ নিরক্ষর।

EK24 News

GST on Tobacco Product: World Health Organisation তামাক যত পণ্যের উপর ভারত সরকারকে ৭৫ শতাংশ ট্যাক্স আরোপ করতে বলেছিল। কিন্তু সেখানে দেশে GST চালু হওয়ার পরে সিগারেটের (Cigarette) ওপর ৫৩ শতাংশ এবং বিড়ির ওপর ২২ শতাংশ আর ধোঁয়াহীন তামাকের উপর ৬৪ শতাংশ কর ধার্য করা হয়। ভারতের এই সিদ্ধান্তে WHO অসন্তোষ প্রকাশ করেছে।

Advertisement

2000 টাকার নোট বাতিল করার নির্দেশ দিলেন প্রধানমন্ত্রী, এই নোট ঘরে থাকলে কি করবেন?

তবে লুস Cigarette প্যাকেট কি কারনে বন্ধ করতে চাইছে সরকার, তা স্পষ্ট নয়। বিশেষজ্ঞেরা জানাচ্ছেন, যদি বন্ধ হয় তবে পুরোটাই হোক, লুস হোক আর পুরো প্যাকেট, যাদের খাওয়ার তারা পুরো প্যাকেট ধরেই কিনবে। এই মুহুর্তে সিগারেট কি বন্ধ করা উচিত? নিচে কমেন্ট করে জানাবেন।
Written by Rajib Ghosh.

Advertisement
Advertisement
2 thoughts on “Cigarette বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা, প্যাকেট খুলে লুস সিগারেট আর বিক্রি করা যাবে না। ধরা পড়লে কঠোর শাস্তি।”
  1. সিগারেট উৎপাদনটা-ই প্রথমে বন্ধ করা উচিত ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Advertisement