Budget 2024 – এবারের রাজ্য বাজেট এক নজরে। সাধারণ মানুষ কি কি পেল জেনে নিন।

গতকাল পেশ হলো পশ্চিমবঙ্গ সরকারের রাজ্য বাজেট ২০২৪ তথা Budget 2024. সামনেই লোকসভা ভোট আর সেই কথা মাথায় রেখে কার্যত সাধারণ মানুষের জন্য ঢেলে সাজানো হয়েছে এই বাজেটে। একদিকে কেন্দ্রীয় বাজেটে সারা দেশের মানুষের অসংখ্য প্রত্যাশা থাকার পর বাজেট ঘোষণার পর যেমন হতাশ হতে হয়। কিন্তু এই বাজেটে কার্যত সাধারণ মানুষের জন্য একাধিক ঘোষণা হয়েছে, জেহানে সরাসরি সরকারী সাহায্য পাবেন। বিস্তারিত জেনে নিন।

Advertisement

West Bengal Budget 2024 with various new schemes and facilities

এই ভোটের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর নিশানা মহিলা ভোট প্রাপ্তি। সেই অনুযায়ী বাংলায় যে সমস্ত প্রকল্প রয়েছে তার বেশিরভাগই রয়েছে মহিলা কেন্দ্রীক। যেমন লক্ষ্মীর ভান্ডার থেকে শুরু করে কন্যাশ্রী, রূপশ্রী প্রভৃতি। লোকসভা ভোটের আগেই নতুন বাজেট পেশে আগের থেকে দ্বিগুণ করা হলো লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পের টাকা। আর কি কি বাজেট নিয়ে বড়ো ঘোষনা করলো রাজ্য সরকার দেখে নিন এক নজরে। কতটা পরিবর্তন হলো ২০২৪ বাজেট ?

Advertisement

রাজ্য বাজেট পেশ

বৃহস্পতিবার বিধানসভায় ২০২৪-২৫ অর্থবর্ষের রাজ্য বাজেট পেশ করেন অর্থ দফতরের স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য। রাজ্যের জনসাধারণ এই বাজেট থেকে কতটা কি লাভ করতে পারবে তার একটু স্বচ্ছ ধারণা দেওয়া যাক – জানা যাচ্ছে বিধানসভায় দুপুর ৩ টা নাগাদ এই বাজেট নিয়ে অধিবেশন বসে। রাজ্য সঙ্গীত দিয়ে Budget 2024 অধিবেশনের শুভ সূচনা হয়। যদিও বাজেট পেশের প্রথমদিকে সঙ্গীত নিয়ে বিতর্ক পরিস্তিতির সৃষ্টি হয়েছিল বিরোধী দল বিজেপির সাথে। নিম্নে পরপর সেই নিয়ে আলোচনা করা হলো:-

১) লক্ষ্মীর ভান্ডারে টাকা দ্বিগুণ

মুখ্যমন্ত্রীর সমস্ত প্রকল্পের মধ্যে সবচেয়ে সাড়া ফেলেছে লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্প। জেনারেল ক্যাটাগরির মহিলারা প্রতি মাসে ৫০০ টাকা করে নিজেদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট টাকা পেতেন। তবে লোকসভা ভোটের পূর্বেই সেই অর্থ বাড়িয়ে দেওয়া হলো। এখন থেকে জেনারেল ক্যাটাগরির মহিলারা প্রতি মাসে ১০০০ টাকা করে আর্থিক ভাতা পাবেন এবং তফসিলি ক্যাটাগরির মহিলাদের ১২০০ টাকা করে দেওয়া হবে।
এমন ব্যাবস্থায় সবচেয়ে খুশি হবে বাংলার মহিলাগণ। অনেকেই মনে করছেন তাদের খুশি করার লক্ষ্য হতে চলেছে লোকসভা ভোটের জয়লাভের মুখ্য হাতিয়ার।

২) ১০০ দিনের কাজের বাজেট পেশ:

১০০ দিনের কাজে শ্রমিকদের বকেয়া বাবদ ৩৭০০ কোটি হয়েছিল। সেই বকেয়া টাকা সেই সমস্ত ১০০ দিনের কাজ করা শ্রমিকদের ২১ শে ফেব্রুয়ারির মধ্যেই দিয়ে দেওয়া হবে। মোট ২১ লাখ মানুষ ১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা পান। ২১ ফেব্রুয়ারির মধ্যে সেই টাকা পরিশোধ দিয়ে দেওয়া হবে আশ্বস্ত মুখ্যমন্ত্রীর।

Advertisement

৩) প্রধানমন্ত্রীর আবাস যোজনা

এই যোজনার টাকাও দেবে রাজ্য সরকার। ঘোষণা করা হয় কেন্দ্র যদি এপ্রিল পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার টাকা না দিয়ে থাকে সেই ১১ লক্ষ বাড়ি তৈরির টাকা মে মাস নাগাদ রাজ্য সরকার দিয়ে দেবেন।

৪) DA বৃদ্ধি

রাজ্য সরকারি কর্মচারীরা দীর্ঘদিন ধরে যে মহার্ঘ্য ভাতা বৃদ্ধির আন্দোলন জারি রেখেছিল তার পরে রাজ্য সরকার মাত্র ৪ শতাংশ DA বৃদ্ধি করেন । কিন্ত সেই অল্প DA বৃদ্ধিতে খুশি নন রাজ্য সরকারি কর্মচারীরা। তবে বাজেট অধিবেশনে অর্থ প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা জানান ভোটের আগেই আরও ৪ শতাংশ হারে DA বৃদ্ধি করা হবে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের। গত জানুয়ারি মাসেও ৪ শতাংশ DA বৃদ্ধি করেন।

আবার ৪ শতাংশ বৃদ্ধি করলে মোট ৮ শতাংশ বাড়বে DA. এখন থেকে সরকারি কর্মচারীরা ১৪ শতাংশ DA পাবেন যদিও এখনও ৩২ শতাংশ ফারাক থাকছে কেন্দ্রীয় DA এর সাথে কারণ কেন্দ্র সরকারি কর্মচারীরা ৪৬ শতাংশ হারে DA পেয়ে থাকেন।
Budget 2024 পেশের পর ৪ শতাংশ ডিএ বৃদ্ধির ফলে সরকারের ২,৪০০ কোটি টাকা খরচ হবে বলে জানান চন্দ্রিমা। কিন্ত এরফলে উপকৃত হবেন রাজ্যের ১৪ লক্ষ সরকারি কর্মী।

৫) সমুদ্র সাথী প্রকল্প

মৎস্যজীবীদের জন্য নতুন প্রকল্প আনল রাজ্য সরকার। যেটি মৎস্যজীবীদের অনেকটাই আর্থিক সহায়তা দেবে। উত্তর ২৪ পরগনা, দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং পূর্ব মেদিনীপুরের মৎস্যজীবীদের জন্য সমুদ্রসাথী প্রকল্প ঘোষণা করল রাজ্য সরকার। এই প্রকল্পে বর্ষার দু’মাস টাকা পাবেন তারা। মৎসজীবীদের এই প্রকল্প অনুযায়ী ৫০০০ টাকা করে দেওয়া হবে। বাজেটে বরাদ্দ করা হবে ২০০ কোটি টাকা। এই প্রকল্পে উপকৃত হবেন ২ লক্ষ মৎস্যজীবী।

৬) রাস্তা ঘাট, সেতু, উড়ালপুল

পথশ্রী প্রকল্পের জন্যও Budget 2024 এ অর্থ প্রদান করবে রাজ্য সরকার। যে সমস্ত রাস্তা এখনও ভাঙ্গা, এবড়ো খেবড়ো রয়েছে, গাড়ি চলাচলের অসুবিধা হয় সেইসব রাস্তা বেশিরভাগ গ্রামের এলাকার মধ্যেই পরে। তেমন ১২ হাজার কিলোমিটার গ্রামীণ রাস্তাকে উন্নত করা হবে বলে জানিয়েছেন রাজ্য সরকার।

সেতু তৈরিঃ
নতুন বাজেটে সেতু তৈরি নিয়ে ঘোষনা করা হয়। সেতু তৈরি করা হবে গঙ্গা নদীর উপর। মুড়িগঙ্গা থেকে কচুবেড়িয়া পর্যন্ত ৩.১ কিলোমিটারের সেতু তৈরি করা হবে। তার নাম দেওয়া হবে ‘গঙ্গাসাগর সেতু’। দামোদর নদের উপর তৈরি হবে ‘শিল্পসেতু’।

উড়ালপুল তৈরিঃ
নতুন বাজেটে উড়ালপুল তৈরি নিয়েও ঘোষনা করা হয়। বলা হয় নিউ টাউন ও বিমানবন্দরের যোগাযোগ ব্যবস্থা আরও উন্নত করতে ইএম বাইপাসে সাত কিলোমিটারের উড়ালপুল তৈরি করা হবে। তিন বছরের মধ্যে সেই প্রকল্প শেষ করা হবে। প্রথম বছরের জন্য বরাদ্দ থাকবে ১৫০ কোটি টাকা। এই উড়ালপুল তৈরি হলে যাতায়াতের আরও একটি নতুন রাস্তা খুলে যাবে ফলে যানজট অনেকটাই কম হবে।

৭) পরিযায়ী শ্রমিকদের স্বাস্থ্যসাথী ঘোষনা

Budget 2024 এ রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্যও স্বাস্থ্যসাথী কার্ডের অন্তর্ভুক্ত করা হলো। রাজ্যের বাইরেও ভিন্ন রাজ্যে যে শ্রমিকরা কাজ করেন তারাও রাজ্যের বাইরের কর্মস্থলের হাসপাতালেও স্বাস্থ্যসাথী কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন বলে ঘোষণা করা হয় বাজেটে।

৮) কর্মশ্রী প্রকল্প

নতুন বাজেট অনুযায়ী কর্মশ্রী প্রকল্প আনা হয়েছে। যেখানে ৫০ দিন করে কাজ দেওয়া হবে। ১০০ দিনের অনুরূপ এই প্রকল্প। চলতি বছরের মে মাস থেকে কর্মশ্রী প্রকল্প চালু হবে। এই প্রকল্প চালু হলে রাজ্যের অনেক মানুষের কাজের সুযোগ হবে। রাজ্যের প্রতিটি জব কার্ড হোল্ডার এই প্রকল্পের আওতায় কাজের সুযোগ পাবেন।

৯) সিভিক ভলিন্টিয়ারদের জন্য

নতুন বাজেটে সিভিক ভলান্টিয়ার, ভিলেজ পুলিশ এবং গ্রিন পুলিশদের ভাতাও বাড়ানো হয়েছে। এই বাবদ এর ১৮০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। আগের থেকে ১০০০ টাকা বেতন বাড়ানো হয়েছে এছাড়া এখন থেকে রাজ্য পুলিশের ২০ শতাংশ চাকরি সংরক্ষিত থাকবে, সিভিক ভলান্টিয়ারদের জন্য। যেটা এতদিন ১০ শতাংশ ছিল। ফলে সিভিক ভলান্টিয়ারদের জন্য এটা খুবই সুখবর হতে চলেছে।

১০) পড়ুয়াদের জন্য

নতুন বাজেটে রাজ্যের পড়ুয়াদের জন্য বিশেষ সুযোগ দেওয়া হবে । মাধ্যমিক পাশের পরে ছাত্র-ছাত্রীরা স্কুলে ভর্তি হলেই স্কুল থেকেই স্মার্টফোন দেওয়া হবে বলে জানালেন রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রিমা। এই খাতে খরচ হবে ৯০০ কোটি টাকা।

১১) তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র (সুপার ক্রিটিকাল থার্মাল পাওয়ার ইউনিট)

নতুন বাজেটে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরির কথা ঘোষণা করল রাজ্য সরকার। এর জন্য বরাদ্দ করা হবে ১০০ কোটি টাকা। এর ফলে অতিরিক্ত কারেন্ট অফ থেকে রেহাই মিলবে আমজনতার।

১২) যুবক যুবতীদের কাজের সুযোগ

রাজ্যের পাঁচ লক্ষ বেকার যুবক-যুবতীকে রাজ্যের বিভিন্ন দফতরে নিয়োগ করা হবে বলে ঘোষণা করা হয় নতুন বাজেটে। ফলে অনেক বেকার যুবক যুবতীদের আর্থিক সহায়তা হবে। বেকারত্ব অনেকটাই ঘুঁচবে আশা করা যায়।

১৩) শিল্পক্ষেত্রে প্রশিক্ষণের সুবিধা

নতুন বাজেটে বিভিন্ন শিল্পক্ষেত্রে সুযোগ পাবেন যুবক-যুবতীরা। শিল্প ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে আর তার সাথে মাসে মাসিক দেড়-দু’হাজার টাকা দেওয়া হবে। এরফলে তারা শিক্ষার সাথে আয়ের সুযোগ পাবেন। প্রতি বছর ১ লক্ষ যুবক-যুবতী এতে লাভবান হবেন। এর জন্য ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ হচ্ছে বলেও ঘোষণা রাজ্য বাজেটে।

১৪) রাজ্যের দারিদ্রের হার কমবে

রাজ্য সরকার জানায়, তৃণমূল সরকার ক্ষমতায় আসার কয়েক বছর আগে, ৫৭.৬০ শতাংশ রাজ্যবাসী দারিদ্রসীমার নীচে ছিলেন। কিন্ত তৃণমূল সরকার আসার পর সেই সীমা অনেকটাই কমেছে। তৃণমূল সরকার আসার পর দু’কোটির বেশি মানুষের জীবিকা সংস্থান হয়েছে। বিভিন্ন প্রকল্প আসার পর মানুষের ব্যাংক ব্যালেন্স বেড়েছে। বর্তমানে দারিদ্রসীমার নীচের মানুষের সংখ্যা কমে ৮.৬০ শতাংশ হয়েছে বলে জানিয়েছেন অর্থ দফতরের প্রতিমন্ত্রী।এছাড়া বাংলায় বেকারত্বের হার দেশের তুলনায় ৩ শতাংশ কম আছে। আগামীতে আরও কম হবে দারিদ্র্য সীমা সেটাই আশা রাখা যায়।

আরও পড়ুন, হটাৎ টাকার দরকার হলে আর কারো হাত পাতবেন না। আধার কার্ড থাকলেই পেয়ে যাবেন।

২০২৪-২০২৫ অর্থবর্ষ অনুযায়ী এই নবনির্মিত Budget 2024 এগুলোই ছিল। Budget 2024 অনুযায়ী যেগুলো বলা হয়েছে সেইভাবে সব সঠিক ভাবে হলে সাধারণ মানুষের তথা রাজ্যের সার্বিক উন্নয়ন হয়তো ঘটবে। তবে এই বাজেট নিয়েও বিজেপি দলনেতারা বিরূপ মন্তব্য প্রকাশ করেছেন। যেমন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী বাজেট প্রসঙ্গে বলেন ‘‘শূন্যপদে নিয়োগের কোনও সুস্পষ্ট পরিকল্পনা নেই এই বাজেটে। এখানে পাহাড়, জঙ্গলমহল, সুন্দরবন উপেক্ষিত। কৃষকদের জন্যেও তেমন কোনও ঘোষণা করা হয়নি Budget 2024 এ। আশাকর্মী, পঞ্চায়েতে কর আদায়কারী, যাঁরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে আংশিক সময়ের জন্য কাজ করেন, তাঁদের জন্য বাজেটে কোনও বৃদ্ধির ঘোষণা নেই। শিল্পের কোনও দিশাও Budget 2024 এ দেখাতে পারেনি সরকার।’’

আরও পড়ুন, 75 কোটি আধার কার্ড গ্রাহকদের নতুন সমস্যা। সতর্ক না হলে বিপদ।

তিনি আরও বলেন ‘‘যে সংখ্যালঘুরা ভোট দিয়ে ওঁকে মুখ্যমন্ত্রী পদে বসিয়েছেন, বাজেটে তাঁদের উন্নয়নের জন্য কোনও ঘোষণা নেই। তাঁদের বুড়ো আঙুল দেখানো হয়েছে। এমনকি, আদিবাসী, লেপচা, ভুটিয়ারাও এই Budget 2024 এ উপেক্ষিত। হাসপাতাল, শিক্ষার খাতেও Budget 2024 এ কোনও বরাদ্দ করা হয়নি।’’ পেট্রোল, ডিজেলে কোনও ছাড়ের উল্লেখ নেই Budget 2024 এ। এলপিজি সিলিন্ডারে রাজ্য ৩০০ টাকা করে কর নেয়। রাজস্থান ৪০০ টাকা ছাড় দিয়ে থাকে। সেইদিকে কোনো খেয়াল রাখেননি মুখ্যমন্ত্রী।

Bandhan Bank Loan (বন্ধন ব্যাংক লোন)

সবমিলিয়ে অর্ধেজী বেশি দিকেই লক্ষ্য দেওয়া হয়নি নতুন Budget 2024 করা কালীন। ফলে এই নব নির্মিত বাজেট নিয়ে বিরোধীরা মোটের ওপর খুশি নন। সাধারণ মানুষও কি খুশি হবেন এই নতুন বাজেটে ? লোকসভা ভোটের আগে এই Budget 2024 কি কোনো শুভ ফল দেবে রাজ্য সরকারের পক্ষে নাকি বিপরীত দিকে হাওয়া বইবে সেটাই দেখার বিষয়।
Written by Shampa Debnath.

শেয়ার করুন: Sharing is Caring!

Leave a Comment