Advertisement
ত্বকের রুক্ষতা দূর করতে নারকেল তেলের ফেস প্যাক
Advertisement

Beauty Parlor At Home, বাড়িতেই বানিয়ে নিন এই সমস্ত ফেসপ্যাক। করোনা কালে যদি বাড়িতেই প্রফেসনাল ফেস প্যাক বানানো যায় তবে কেমন হয়? পরিমান মত এবং নিয়ম মেনে বাড়িতে বানালে হাইজেনিক যেমন হবে তেমনি এতে চামড়া হবে উজ্জ্বল, সহজে কুঁচকে যাবে না। ত্বকের জন্য নারকেল খুবই ভালো। সহজে দাগ-ছোপ দূর করে দেয় আবহাওয়া পরিবর্তনের সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়ে ত্বকের ওপর। গ্রীষ্মকালে চ্যাটচ্যাটে ত্বকের জন্য পিম্পল, অ্যাকনে, ট্যানিং বা দাগছোপের মতো সমস্যা দেখা দেয়, তেমনি শীতকালে ত্বক হয়ে পড়ে শুষ্ক ও রুক্ষ। এই সমস্ত সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য মহিলারা নানান কেমিক্যালযুক্ত প্রোডাক্ট ব্যবহার করেন। তবে ঘরোয়া উপায়েই এই সমস্যা সমাধান করা যায়।
ত্বকের সমস্যা দূর করতে নারকেল বিশেষ উপযোগী। নারকেলের তেল স্কিন টোন হাল্কা ও দাগ-ছোপ দূর করতে সাহায্য করে। অন্য দিকে নারকেলের শাঁস ত্বক কোমল করে। নারকেলের শাঁস দিয়ে বাড়িতেই ফেস প্যাক বানিয়ে ফেলতে পারেন। কী ভাবে তৈরি করবেন জেনে নিন,
নারকেল ও টমেটোর ফেস প্যাক
টমেটো ও কাঁচা দুধ মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিন। তার পর এতে নারকেল মিশিয়ে মিক্সারে পেস্ট করে নিন। মুখ ও ঘাড়ে এই ফেস প্যাক লাগিয়ে শুকতে দিন। ২০ মিনিট পর জল দিয়ে ভালো ভাবে ধুয়ে নিতে হবে। সংবেদনশীল ত্বকের জন্য এই ফেসপ্যাক অত্যন্ত উপকারী।
নারকেল ও শশা
নারকেলের দুধে এক চামচ শশার রস ও এক চামচ অ্যালোভেরা জুস মিশিয়ে নিন। এর পর এই মিশ্রণে তুলো ভিজিয়ে নিজের মুখে লাগান। ১০ মিনিট শুকতে দিন। তার পর ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। উজ্জ্বল ত্বক পেতে হলে এই উপায়টি অবলম্বন করুন। নারকেল ও কলার স্ক্রাব কোড়া নারকেলে এক চতুর্থাংশ কলা ম্যাশ করে নিন। তার পর এতে দিন এক চামচ মধু। ভালো করে মিশিয়ে এই মিশ্রণটিকে নিজের মুখে লাগিয়ে ২ মিনিট পর্যন্ত ম্যাসাজ করুন। তার পর ১৫ মিনিটের জন্য ওই মিশ্রণটিকে মুখে এ ভাবেই লাগানো রেখে দিন। শুকিয়ে গেলে ঈষদুষ্ণ জলে মুখ ধুয়ে নিতে হবে। ত্বক মোলায়েম করে এই ঘরোয়া টোটকা।
নারকেল ও মধুর ফেস প্যাক
এটি তৈরির জন্য ৩ চা চামচ মধু, ২ চা চামচ নারকেলের দুধ, আধ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো এক সঙ্গে মিশিয়ে ১৫ মিনিটের জন্য মুখে লাগিয়ে রাখুন। তার পর ঈষদুষ্ণ জলে কাপড় ভিজিয়ে মুখ পরিষ্কার করে নিন। সপ্তাহে দুবার এই ফেস প্যাক লাগালে সুফল পেতে পারেন।

Advertisement

নারকেল ও আমন্ড এসেনশিয়াল অয়েল
অতিবেগুনী রশ্মি ত্বকের ক্ষতি করে। এর ফলে ত্বকে শীঘ্র ফাইন লাইনস দেখা দেয় এবং ট্যানিং হতে শুরু করে। এই সমস্যা দূর করতে নারকেল ব্যবহার করুন। এর জন্য নারকেলের শ্বাস বেটে নিন। এতে কয়েক ফোঁটা আমন্ড এসেনশিয়াল অয়েল মিশিয়ে নিতে হবে। তার পর মুখ, ঘাড় ও অন্যান্য স্থানে লাগিয়ে রাখুন। ১৫ মিনিট পর ঈষদুষ্ণ জলে ধুয়ে নিন।
নারকেল, আমন্ড ও মধু
৫টি বাদাম সারা রাত জলে ভিজিয়ে রাখুন। এর পর সকালে এটি বেটে এতে এক চামচ নারকেলের দুধ মেশান। মুখ ও ঘাড়ে নারকেলেরে দুধের এই ফেসপ্যাক লাগান। নিজের আঙুল দিয়ে কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করার পর ১০ মিনিটের জন্য ছেড়ে দিন। তার পর জল দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে। সপ্তাহে দুবার এই ফেস প্যাক ব্যবহার করলে উজ্জ্বল ত্বক পেতে পারেন।
নারকেল ও ওটস
এক বড় চামচ ওটসের গুঁড়োয় প্রয়োজন মতো নারকেলের দুধ মেশান। তার পর মুখ ও ঘাড়ে লাগিয়ে আঙুল দিয়ে ম্যাসাজ করুন। এর ফলে ত্বক এক্সফোলিয়েট হয়। ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর ধুয়ে নিতে হবে। সপ্তাহে ২ বা ৩ বার এই ফেসপ্যাক ব্যবহার করতে পারেন।
দই ও নারকেল
দু চামচ দুধের মধ্যে এক চামচ দই মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি মুখে লাগিয়ে ২ থেকে ৩ মিনিট পর্যন্ত মালিশ করুন। ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর তুলো দিয়ে এটি পরিষ্কার করুন এবং তার পর জল দিয়ে ধুয়ে নিন। শুষ্ক ত্বক থেকে মুক্তি পেতে সপ্তাহে ২ থেকে ৩ বার এটি ব্যবহার করতে পারেন।

Advertisement
Advertisement

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Advertisement